জাদুকাঁটা নদীর তীরে ধ্বসে যাচ্ছে ‘হিলিপের’ ৩৩ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত কার্লভাট

প্রকাশিত: 2:01 AM, March 11, 2018

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের জাদুকাঁটা নদীর পুর্ব তীরে মোদেরগাঁও-বিন্নাকুলি সড়কে ‘হিলিপ’এলজিইডি প্রকল্পের প্রায় ৩৩ লাখ ব্যয়ে নির্মিত কার্লভাটটি ক্রমশ ধ্বসে যাচ্ছে।’ বিগত বছর পাহাড়ি ঢলে কালভার্টটির সংযোগ সড়কের দু’পাশের মাটি নদী গর্ভে চলে যাওয়ায় পুন:সংস্কার না করায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়ে বর্তমানে ওই কালভার্টের উপর দিয়ে যাবাহন নিয়ে সাধারন লোকজন চলাচল করতে পারছেন না। এর ফলে উপজেলার মোদেরগাঁও-বিন্নাকুলির এ সড়ক ব্যবহারকারী তাহিরপুর ও পার্শ্ববর্তী বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার হাজারো লোকজন প্রতিনিয়ত ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।’

জানা গেছে, ২০১৭ সালে বিগত মৌসুমে পাহাড়ি ঢল ও বন্যায় গ্রামীন সড়কের এ কার্লভাটটির সংযোগ সড়কের দু’পাশের মাটি নদীতে সরে যাওয়ায় পর হিলিপ কিংবা এলজিইডি এ সড়কে পুন”সংস্বার কাজ না করায় চলতি মৌসুমে ফের পাহাড়ি ঢল কিংবা বন্যা হলে পুরো কার্লভাটটি নদীতে ধ্বসে পড়বে বলে স্থানীয় আশংকা প্রকাশ করেছেন।’

সরজমিনে গিয়ে জানা গেছে, ২০১৪-১৫ অর্থ বছরে হিলিপি এলজিইডি প্রায় ৩২ লাখ ৭০ হাজার ৬৬০ টাকা নির্মাণ ব্যায়ে তাহিরপুরের মোদেরগাঁও-বিন্নাকুলি গ্রামীণ সড়কে কার্লভাটটি নির্মাণ করে।’ ২০১৬ সালের মার্চে এর নির্মাণ কাজ শেষ হয়। পরবর্তীতে ২০১৭ সালে জাদুকাটা নদী দিয়ে আসা বন্যা ওপাহাড়ি ঢলের তীব্র ¯্রােতের তোড়ে ভাঙ্গনের কবলে পড়ে কার্লভাটটির সংযোগ সড়কের দু’পাশের মাটি নদীতে সরে যায়।’ মাটি সরে যাওয়ায় সড়কের দক্ষিণ দিকে থাকা কার্লভাটের অংশটি ক্রমশ হেলে গিয়ে ধীরে ধীরে ধ্বসেই যাচ্ছে।’

এদিকে এ সড়ক ব্যবহারকারী ভোক্তভোগীরা জানান, উপজেলার মোদেরগাঁও-বিন্নাকুলি গ্রামীণ সড়কটি মুলত দু’উপজেলা তাহিরপুর-ব্শ্বিম্ভরপুর এলাকার লোকজন যাতায়াতে ব্যবহার করে থাকেন।’ বিন্ন্কুলি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যাায়, মাদ্রাসা, বাজার, রাজারগাঁও অদ্বৈত প্রভুর আঁখড়াবাড়ি, গড়কাটি ইসকন মন্দির, লাউড়েরগড় উচ্চ বিদ্যালয়, বাজার ও শাহ আরেফিন(রহ.) মোকাম সহ স্কুল মাদ্রাসায় যাতায়াতকারী শিক্ষার্থী এবং সাধারন লোকজন এ কার্লভাটের সংযোগ সড়কের মাটি সরে যাওয়ায় ও ধ্বসে যাওয়ার কারনে চরম ঝুঁকি নিয়ে বাইসাইকেল, মোটরসাইকেল ও অটোরিক্সায় যাতায়াত করছেন।’

উপজেলার মোদেরগাঁও গ্রামের ব্যবসায়ী রায়হান উদ্দিন বললেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন এমপির বিশেষ বরাদ্দ থেকে প্রাপ্ত অর্থে ও গ্রামবাসীর সহযোগীতায় কার্লভাটটি রক্ষায় মাটি, টিন, বাঁশ ও বস্তা ফেলে তা রক্ষায় চেষ্টা করা হয়েছে কিন্তু প্রটেকশান ওয়াল ও ব্লক বসিয়েই কেবল এ কার্লভাটটি রক্ষা করা সম্ভব অন্যথায় আগামী বর্ষা মৌসুমে এ কার্লভাটটি জাদুকাঁচটা নদীতে ধ্বসে পড়ে বিলীন হয়ে যাবে।’

উপজেলার বিন্নাকুলি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুর্শেদ আলম বললেন, কার্লভাটটির মাটি সরে ধ্বসে পড়ায় ও সংযোগ সড়কে মাটি না থাকায় বিদ্যালয়গামী আশেপাশের ১০ গ্রামের শতশত শিক্ষার্থী বাইসাইকেল ও অটোরিক্সায় চরে যাতায়াতে চরম ঝুঁকির পাশাপাশী ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।’

উপজেলার রাজারগাঁও শ্রী শ্রী অদ্বৈত জন্মধাম পরিচালনা কমিটির সভাপতি করুণা সিন্দু চৌধুরী বাবুল জানান,প্রতিদিন এ সড়ক ব্যবহার করে হাজারো ভক্ত আঁড়াবাড়ি আসতে গিয়ে ঝুঁকি ও বৈাগান্তির শিকার হচ্ছেন। তিান আরো বলেন, বুধবার থেকে পণতীর্থে ¯œানযাত্রায় কয়েক লাখা লোক যাতায়াত করবেন কিন্তু দ্রুত কার্লভাটটি সংস্কার না করা হলে এ সড়ক দিয়ে সিএনটি, মোটরসাইকেল ও কিক্সায় চরে লোকজন ও ভক্তরা আসতে পারবেন না ফলে দেড় থেকে দ’ুকিলোমটির সড়ক পায়ে হেঁটেই যাতায়াত করতে হবে।’

সুনামগঞ্জ এলজিইডির নির্বাহি প্রকৌশশলী মো. ছিদ্দিকুর রহমানের নিকট শনিবার বিস্তারিত অবহিত করে মোদেরগাঁও-বিন্নাকুলি গ্রামীণ সড়কের ওপর কার্লভাটটি পুন:সংস্কাররের বিষয়ে জানতে চাইলে শরিবার তিনি বললেন, এ বিষয়ে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে তাহিরপুর উপজেলা প্রকৌশলীকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

March 2018
S S M T W T F
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31  

সর্বশেষ খবর

………………………..