সিলেট-জকিগঞ্জ সড়ক দ্রুত সংস্কারের দাবীতে ৭২ ঘন্টার আল্টিমেটাম

প্রকাশিত: 9:19 PM, April 29, 2018

Sharing is caring!

সিলেট :: জনগণের দুর্ভোগ লাঘবে সিলেট-জকিগঞ্জ সড়ক দ্রুত সংস্কারের দাবি জানানো হয়েছে। রোববার সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে জকিগঞ্জ ছাত্র পরিষদ, সিলেট’র উদ্যোগে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানিয়ে ৭২ ঘন্টার মধ্যে সড়কের বটরতল-শাহবাগসহ ৩টি স্পটে কাজ শুরু এবং রমজানের মধ্যে পুরো সড়কের সংস্কার কাজ সম্পন্ন করার আল্টিমেটামও দেওয়া হয়।

সড়ক সংস্কারের দাবিতে একই সাথে আগামি ১ মে থেকে বিভিন্ন কর্মসূচিও পালন করা হবে। এসব কর্মসুচির মধ্যে রয়েছে- ১ মে থেকে ৫ মে পর্যন্ত বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও জকিগঞ্জবাসীর সাথে মতবিনিময় সভা, ৬ মে দুপুর ১২টায় সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচী ও জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান, ৭ মে থেকে ১২ মে পর্যন্ত জকিগঞ্জের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের ও স্কুল-কলেজের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সাথে মতবিনিময় এবং কালীগঞ্জ বাজার ও জকিগঞ্জ বাজারের এমএ হক চত্ত্বরে প্রতিবাদ সমাবেশ ‘জনতার মঞ্চ’ এবং রমজানের পূর্বে মেরামত সম্পন্ন না হলে সিলেট সড়ক ও জনপথ বিভাগের কার্যালয় ঘেরাও।

সিলেট-জকিগঞ্জ-কানাইঘাট-বিয়ানীবাজার-গোলাপগঞ্জ- বড়লেখার যানবাহন যাতায়াত করে এ সড়ক দিয়ে। শুধু তাই নয়, এ সড়ক দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। জকিগঞ্জ কাস্টমস ও জকিগঞ্জ ইমিগ্রেশন দিয়ে ভারতের সাথে রয়েছে ব্যবসা ও যাতায়াত। এছাড়া সুতারকান্দি সীমান্ত দিয়ে আমদানি ও রফতানি বাণিজ্য হয় কয়লা ও পাথরের।

গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটির প্রতি চরম অবহেলা রয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না হওয়ায় পুরো সড়ক ঝুঁকিপূর্ণ রূপ নিয়েছে। স্থানে স্থানে সৃষ্টি হয়েছে ছোট-বড় অসংখ্য গর্তের। ফলে এ সড়কে ঘটছে একের পর এক দুর্ঘটনা। হতাহত হচ্ছেন যানবাহনের যাত্রীরা। এমনকি গত বছর গাড়ি গর্তে পড়ে একই পরিবারের ৭ জনের মৃত্যু হয়েছিল। যেখানে সিলেট থেকে জকিগঞ্জ যেতে বাসে সময় লাগে ২ ঘন্টা, সেখানে বর্তমানে এ সময় লাগছে ৬ থেকে ৭ ঘন্টা। অনেক সময় সৃষ্টি হয় দীর্ঘ যানজট। ফলে গর্ভবতি মহিলাসহ রোগীরদেরকে নিয়েও যথাসময়ে হাসপাতালে পৌঁছা সম্ভব হয় না।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়- গত ৩০ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেট সফরকালে এ মহাসড়কের সংস্কার কাজের উদ্বোধন করলেও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এস.এন.সি.জে.বি. ও সড়ক ও জনপদের সিলেটের প্রকৌশলী প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অমান্য করে টাকা আত্মসাতের পাঁয়তারা করছে। সরকারের নির্বাহী আদেশ অমান্য করে তারা সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছে। জেলা প্রশাসক সওজ কর্মকর্তাদের দ্রুত কাজ করার নির্দেশ দিলেও বাস্তবে কোন কাজ হচ্ছে না। মহাসড়ক সংস্কারে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবুল মুহিত সওজ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিলেও তা উপেক্ষা করা হয়েছে। এছাড়া সড়ক সংস্কারে সিলেট-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম উদ্দিন ও রূপালী ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. আহমেদ আল কবির ও সি এন্ড বি’র নুরুল মজিদ চৌধুরীর আশ্বাসও আলোর মুখ দেখেনি। ফলে ফুঁসে উঠেছেন জকিগঞ্জবাসী। ইতোমধ্যেই দেওয়া হয়েছে আন্দোলনের ডাক। দ্রুত সময়ের মধ্যে সড়কটি সংস্কার করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জকিগঞ্জ ছাত্র পরিষদের আহ্বায়ক মো. সাজু ইবনে হান্নান খান, সদস্য সচিব অলি চৌধুরী, যুগ্ম আহ্বায়ক সৈয়দ আসলাম, সাহাব উদ্দিন, হুমায়ুন আহমদ শিহাব, সীমান্তিক টিটি কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুর রউফ তাপাদার, জকিগঞ্জ এসোসিয়েশনের মাওলানা আব্দুর সবুর, আব্দুল হান্নান তাপাদার, আলাউদ্দিন তালুকদার, একতা ফোরামের কুবাদ বখত চৌধুরী রুবেল, মো. আনোয়ারুল হক, সোহেল তালুকদার, মো. আবুল কালাম, মারুফ আহমদ, জুনাইদ আহমদ জুনেদ, ফুয়াদ আল আমিন, ফরহাদ লস্কর, সৈয়দ মাজহারুল আবেদীন, ফয়জুল হাদী তপাদার সফিকুল, এস রহমান সায়েফ, আদিল চৌধুরী, মুশফিকুর রহমান, অমৃত রায়, রিপন আহমদ, তানভীর ইবনে হান্নান খান, ছাব্বির আহমদ, সুমন চৌধুরী, তৌহিদুর রহমান শিপু, ফয়সল আহমদ, মঞ্জু আহমদ, শরিফ চৌধুরী, সাহেল চৌধুরী, সৈয়দ মিনহাজ আহমদ, আল আমিন, জবুর আহমদ প্রমুখ।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সর্বশেষ খবর

………………………..