চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ছাত্রীকে জোরপূর্বক ধর্ষণের অভিযোগ

প্রকাশিত: ১০:২২ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১০, ২০১৮

Sharing is caring!

ক্রাইম সিলেট ডেস্ক : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ডাঃ রিয়াদ সিদ্দিকী নামের যৌন ও চর্ম বিশেষজ্ঞ এক চিকিৎসকের বিরুদ্ধে এক ছাত্রীকে জোরপূর্বক ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। গতকাল সোমবার এ ঘটনা নির্যাতিতার বাবা কামাল হোসেন বাদী হয়ে শাহবাগ থানায় একটি মামলা করেছেন। এই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সাব-ইন্সপেক্টর (এসআই) রিপন কুমার বিশ্বাস। আজ মঙ্গলবার নির্যাতিতার জবাববন্দীর রেকর্ড করার জন্য আদালতে হাজির করা হয়েছে। মামলার এজহার থেকে জানা যায়, গত বছরের ৬ অক্টোবর দ্বাদশ শ্রেণির ওই ছাত্রী রিয়াদ সিদ্দিকীর কাছে চিকিৎসা নিতে গেলে ওই ডাক্তার তাকে বিবস্ত্র করে স্পর্শকাতর জায়গাসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় মলম লাগায়। এ সময় বাধা দিলে ডাক্তার তাকে শাসায় এবং কাউকে না জানানোর কথা বলে। মেয়েটি লোকলজ্জার ভয়ে বিষয়টা কাউকে জানায়নি। পরবর্তী তারিখে চিকিৎসা নিতে গেলে ওই ডাক্তার প্রথমে তাকে বিবস্ত্র করে মলম লাগায়। এরপর ধর্ষণ করে। সেই দৃশ্য ভিডিও করে রাখা হয়েছে জানিয়ে ওই চিকিৎসক তখন মেয়েটিকে হুমকি দেয়, ঘটনা কাউকে বললে ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়া হবে। ফলে ভয়ে মেয়েটি কাউকেই বিষয়টি জানায়নি। ডা. রিয়াদ সিদ্দিকী পরবর্তী মেয়ের মরণব্যাধী রোগ হয়েছে জানিয়ে চিকিৎসার জন্য মেডিকেল বোর্ড বসানো হবে বলে পরিবারকে জানান। সেই কথা মতো মেয়েকে নিয়ে গত ৩১ ডিসেম্বর ছাত্রীর বাবা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে হাজির হন। তখন পরিবারের লোকজনদের অপেক্ষা করতে বলে ওই ডাক্তার মেয়েটিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বি-ব্লকের চতুর্থ তলার একটি নির্জন রুমে নিয়ে ধর্ষণ করতে গেলে ওই ছাত্রী কান্নাকাটি ও চিৎকার করে। এ সময় ওই ডাক্তার তাকে ওপর থেকে ফেলে দেওয়ার হুমকি দেয় এবং জোরপূর্বক আবারও ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সর্বশেষ খবর

………………………..

shares