গোয়াইনঘাটে সেতু নির্মাণের ৯ বছর পর জেলা পরিষদের খেয়া ঘাটের ইজারা!

প্রকাশিত: ৯:৪২ অপরাহ্ণ, জুন ১৮, ২০১৯

গোয়াইনঘাটে সেতু নির্মাণের ৯ বছর পর জেলা পরিষদের খেয়া ঘাটের ইজারা!

গোয়াইনঘাট উপজেলার রুস্তমপুর ইউনিয়ন পরিষদের অন্তর্গত বঙ্গবীর হাদারপার সড়কে পিয়াইন নদীর উপর (গরুর ঘাট) প্রকাশিত পীরের বাজারে সেতু নির্মিত হয়েছে ২০১০ সালে। সিলেট -(৪) আসনের সংসদ সদস্য ও গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ আনুষ্ঠানিক ভাবে সেতুটির উদ্বোধন করেন ২০১১ সালের জানুয়ারি মাসের প্রথম দিকে।

প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ এমপি আনুষ্ঠানিক ভাবে সেতুটি উদ্বোধনের পর থেকে সিলেট জেলা পরিষদ গোয়াইনঘাট উপজেলার রুস্তমপুর ইউনিয়নের (গরুর ঘাট) প্রকাশিত পীরের বাজার খেয়া ঘাটের ইজারা প্রদান থেকে বিরত রয়েছে। অপর দিকে সাম্প্রতিক সময়ে সিলেটের সীমান্তবর্তী জনপদ গোয়াইনঘাট উপজেলার রুস্তমপুর ইউনিয়ন পরিষদের অন্তর্গত বিছনাকান্দি পর্যটন কেন্দ্র পরিচিতি লাভ করায় পীরের বাজার থেকে নৌকা যোগে বিছানা কান্দি পর্যটন স্পষ্টে যেতে পর্যটকেরা অধিক আগ্রহী হয়ে পড়েন। ফলে পীরের বাজারে একটি খেয়া ঘাট প্রতিষ্টার চাহিদা প্রকাশ পায়।

রুস্তুমপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন শিহাব তার পরিষদের সকল ইউপি সদস্যদের নিয়ে তৎকালীন গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: সালাহ উদ্দিনের সাথে উক্ত বিষয়ে বিভিন্ন পরামর্শ করেন। অবশেষে পীরের বাজার পর্যটন নৌকা ঘাটটি রুস্তুমপুর ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ইজারা প্রদানের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। রুস্তমপুর ইউনিয়ন পরিষদ পীরের বাজার খেয়া ঘাটটি বিগত ৩/৪ বছর থেকে ইজারা প্রদান করে আসছে। সর্বশেষ কাঠাল বাড়ি কান্দি গ্রামের মৃত হাজী মবারক আলীর ছেলে মো: আব্দুর রশিদ পীরের বাজার পর্যটন নৌকা ঘাট ইউপি ট্যাক্স সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে ১৪২৬ বাংলা সনের ইজারা মূল্য পরিশোধ করেন।

উল্লেখ্য ১লা বৈশাখ ১৪২৬ বাংলা তারিখ হইতে ৩০ শে চৈত্র ১৪২৬ বাংলা পর্যন্ত। উল্লেখিত পর্যটন নৌকাঘাটটি নব্য সৃষ্টি হওয়ায় রুস্তমপুর ইউনিয়ন পরিষদের নিজস্ব তহবিল বৃদ্ধি পাচ্ছে। দীর্ঘ ৯ বছর পর হঠাৎ করে ( গরুর ঘাট) পীরের বাজার খেয়াঘাট জেলা পরিষদ কতৃপক্ষ ইজারা প্রদান করে নতুন করায় বর্তমানে দুটি পক্ষ মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছেন।

এব্যপারে রুস্তুমপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন শিহাব বলেন (গরুর ঘাট) পীরের বাজারে পিয়াইন নদীর উপর সেতু নির্মিত হয়েছে ২০১০ সালে। ২০১১ সালের শুরুর দিকে সেতুটি উদ্বোধন করা হয়েছে। ফলে দীর্ঘ ৯ বছর গরুর ঘাট খেয়াঘাট ইজারা প্রদান করেননি সিলেট জেলা পরিষদ কতৃপক্ষ। সাম্প্রতিক সময়ে গোয়াইনঘাট উপজেলার বিছনাকান্দি পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে দেশ-বিদেশে পরিচিতি লাভ করায় পীরের বাজার খেয়া ঘাটটির প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়।

ফলে উক্ত খেয়া ঘাটটি সুষ্ঠু পরিচালনা ও আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার লক্ষ্যে এবং ইউনিয়ন পরিষদের নিজস্ব তহবিল আরো শক্তিশালী করণে উক্ত খেয়া ঘাটটি ইজারা প্রদান করা হয়েছে। অপর দিকে সিলেট জেলা পরিষদের সহকারী প্রকৌশলী বলেন ২০১১ সাল থেকে গরুর ঘাট খেয়াঘাট ইজারা প্রদান করেননি সিলেট জেলা পরিষদ। আবার রেজুলেশন করে এ ঘাটটি জেলা পরিষদের তালিকা থেকেও বাতিল করেনি।

Sharing is caring!

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সর্বশেষ খবর

………………………..