প্রধানমন্ত্রীর সফর ঘিরে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত

প্রকাশিত: ২:১৩ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২১, ২০১৮

Sharing is caring!

মোহাম্মদ হানিফ : আগামী ৩০ জানুয়ারি বিভাগীয় নগরী সিলেট সফরে আসছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা। সিটি করপোরেশন ও জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে এ সফরে আসছেন তিনি। ওইদিন তিনি হযরত শাহজালাল, শাহপরাণ (রহ.) এবং নগরীর কুশিঘাটে শাহ গাজী সৈয়দ বুরহান উদ্দিন (রহ.) এর মাজার জিয়ারতের পাশাপাশি যোগ দেবেন জনসভায়ও। ঐতিহ্যবাহী আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে অনুষ্ঠেয় জনসভার আগে তিনি সিলেট সিটি করপোরেশনের নবনির্মিত ভবনসহ একাধিক উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন এবং ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপনও করবেন। ২০১৬ সালের ২৩ নভেম্বর সর্বশেষ সিলেট সফরে গিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই হিসেবে এক বছর ২ মাস পর ফের তিনি সিলেট যাচ্ছেন। তাঁর এই সফরকে ঘিরে স্থানীয় আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা ব্যস্ত সময় পার করছেন। নির্বাচনের আগ মুহুর্তে প্রধানমন্ত্রীর আগমন নেতাকর্মীদের উজ্জীবিত করছে। প্রধানমন্ত্রীর এ সফরের প্রভাব সংসদ এবং সিটি নির্বাচনে পড়বে বলে মনে করছেন নেতাকর্মীরা। একই ভাবে দলকে সুসংগঠিত করতে এই সফর বেশ গুরুত্ব রাখবে। এ কারণে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে প্রায় প্রতিদিনই বর্ধিত সভা ও কর্মিসভা করা হচ্ছে। তাছাড়া কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে আগামী ২০ জানুয়ারি যৌথ কর্মীসভারও আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়া অঙ্গ সংগঠনের উদ্যোগেও প্রধানমন্ত্রীর আগমন ঘিরে নানা তৎপরতা চলছে। সিলেট আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন, ‘আগামী সিটি করপোরেশন নির্বাচন এবং জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য প্রধানমন্ত্রী এ সফর অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ। তার আগমন দলকে সংগঠিত করবে ভূমিকা রাখবে।

এছাড়া তিনি জনসভায় বিভিন্ন দিক-নির্দেশনাও দেবেন। যা থেকে নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত হয়ে নির্বাচনের জন্য কাজে নেমে পড়বেন।’ এদিকে, প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে সিলেট নগরজুড়ে যেন উৎসবের রঙ লেগেছে। ইতিমধ্যে আলিয়া মাদ্রাসা মাঠের পাশ্ববর্তী বিভিন্ন বিলবোর্ডে বড়-বড় ব্যানার আর ফেস্টুনে ভরে গেছে। একই ভাবে বিভিন্ন স্থানে তোরণ নির্মাণের প্রস্তুতিও চলছে। তাছাড়া আলিয়া মাদ্রাসার আশপাশে ব্যানার-বিলবোর্ড টানাতে স্থানও দখল করে রেখেছেন ছাত্রলীগের মহানগর কমিটির এক নেতা। পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণে সিটি নির্বাচন ও জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সম্ভাব্য প্রার্থীদের পক্ষে ব্যানার আর পোস্টার সাঁটানো শুরু করেছেন তাদের অনুসারীরা। একইভাবে জনসভার দিনেও সম্ভাব্য প্রার্থীদের অনুসারীদের ব্যাপক উপস্থিতি দেখাতে মাঠ পর্যায়ে কাজ শুরু করেছেন তাদের অনুসারীরা। শুধু সিলেট মহানগর এবং জেলা নয়; পুরো বিভাগের সবকটি জেলা-উপজেলা থেকে যাতে নেতাকর্মীরা জনসভায় আসতে পারেন তার জন্য প্রচারণার প্রস্তুতিও নেয়া হচ্ছে।

এ ব্যাপারে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরকে কেন্দ্র করে সিলেটে দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসবের আমের বিরাজ করছে। তার সফর সফল করতে আমরা দফায় দফায় বৈঠক করছি। এছাড়া কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের দিকনির্দেশনায় বিভিন্ন পরিকল্পনাও নেয়া হচ্ছে। সর্বোপরি আগামী ৩০ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর জনসভাকে জনসমুদ্রে পরিণত করতে জেলা আওয়ামী লীগ সার্বিক প্রস্তুতি নিচ্ছে।’ সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন বলেন, ‘বছরের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রীর সিলেট আগমন আমাদের জন্য অত্যন্ত খুশির। প্রধানমন্ত্রীর এ আগমনে সিলেটের আওয়ামী পরিবার আরো সুসংগঠিত হবে, যা আগামী সিটি ও সংসদ নির্বাচনের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’ তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সফর ঘিরে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত হয়ে উঠেছেন। তারা প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে ব্যাপকভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছেন। আগামী ৩০ জানুয়ারি সিলেট নগরকে মিছিলের নগরী হিসেবে পরিণত করা হবে বলেও মন্তব্য এই নেতার।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সর্বশেষ খবর

………………………..

shares