মাছ চুরির দায়ে মেম্বারকে সারারাত খুঁটির সঙ্গে বেঁধে রাখল গ্রামবাসী

প্রকাশিত: ১২:২৯ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১০, ২০২০

মাছ চুরির দায়ে মেম্বারকে সারারাত খুঁটির সঙ্গে বেঁধে রাখল গ্রামবাসী

Sharing is caring!

ক্রাইম সিলেট ডেস্ক : সাতক্ষীরা সদরের ঝাউডাঙ্গা ইউনিয়নের পাথরঘাটা এলাকায় ঘেরের মাছ চুরির সময় ইউপি সদস্য (মেম্বার) সেলিম হোসেনকে আটক করেছে গ্রামবাসী। আটকের পর বিদ্যুতের খুঁটির সঙ্গে কয়েক ঘণ্টা তাকে বেঁধে রাখা হয়।

এ অবস্থায় ১০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার পর বৃহস্পতিবার (০৯ জানুয়ারি) সকালে তাকে মুক্তি দেয়া হয়। মাছ চুরির সময় আটক সেলিম হোসেন ঝাউডাঙ্গা ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও পাথরঘাটা গ্রামের বাসিন্দা।

পাথরঘাটা গ্রামের শওকত হোসেন বলেন, আমরা ১২ জন একত্রে একটি মাছের ঘের করেছি। তার পাশেই আরেকটি মাছের ঘের রয়েছে ইউপি সদস্য সেলিম হোসেনের। দীর্ঘদিন ধরে আমাদের মাছের ঘের থেকে জাল দিয়ে মাছ ধরে নিজের ঘেরে ছাড়েন ওই ইউপি সদস্য। ঘটনাটি আমরা জানার পর পাহারায় ছিলাম। বুধবার (০৮ জানুয়ারি) মধ্যরাতে সেলিম হোসেন আমাদের ঘের থেকে জাল দিয়ে মাছ ধরে নিজের ঘেরে ছাড়তে থাকেন। এ সময় শাহাদাৎ, মান্নানসহ আমরা কয়েকজন সেলিম হোসেনকে হাতেনাতে মাছসহ ধরি।

তিনি আরও বলেন, এরপর গ্রামবাসী ইউপি সদস্য সেলিম হোসেনকে বিদ্যুতের খুুঁটির সঙ্গে বেঁধে রাখেন। এ অবস্থায় ১০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার পর তাকে ছেড়ে দেয়া হয়।

এ ঘটনার পর ইউপি সদস্য সেলিম হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও কল রিসিভ করে তিনি পরিচয় গোপন করেন। একপর্যায়ে কল কেটে দিয়ে ফোন বন্ধ করে দেন।

এ বিষয়ে জানতে ঝাউডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আজমল উদ্দীনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তার ব্যবহৃত ফোন নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়।

জানতে চাইলে সাতক্ষীরা থানা পুলিশের ওসি মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, মাছ চুরির সময় ইউপি সদস্য ধরা পড়ার বিষয়টি শুনেছি। তবে এ ঘটনায় কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সর্বশেষ খবর

………………………..

shares