নওগাঁ জেলা প্রেসক্লাবে সন্ত্রাসীদের হামলা অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুর

প্রকাশিত: ২:৪০ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৬, ২০১৭

Sharing is caring!

আল আমিন মুন্সী : নওগাঁ জেলা প্রেস ক্লাবে রোববার বিকেল ৩টার দিকে সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুরসহ অগ্নিসংযোগ করেছে। এ সময় বাধা দিতে গেলে সন্ত্রাসীরা চ্যানেল আই ও বাসসের নওগাঁ প্রতিনিধি ও প্রেস ক্লাবের সভাপতি কায়েস উদ্দিনকে বেদম মারপিট করে এবং আসবাবপত্রে আগুন ধরিয়ে দেয়। আগুনের খবর পেয়ে স্থানীয় ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা এসে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। এতে টেলিভিশন, চেয়ার, টেবিলসহ প্রায় লক্ষাধিক টাকার সম্পদের ক্ষতি হয়। এদিকে হামলার পর সন্ত্রাসীরা পালিয়ে গেলে সহকর্মীরা আহত সাংবাদিক কায়েস উদ্দিনকে উদ্ধার করে নওগাঁ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। এ ঘটনায় জেলার সাংবাদিক মহলে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনার পর পুলিশ ও প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা ঘটনা স্থল পরিদর্শন করে এই কর্মকান্ডের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। এ বিষয়ে প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মীর মোশারোফ হোসেন জুয়েল জানান, দুপুর ৩টার দিকে সভাপতি কায়েস উদ্দিন প্রেস ক্লাবে বসে তার দাফতরিক কাজ করছিল। এ সময় কথিত সাংবাদিক আজাদ হোসেন মুরাদের নেতৃত্বে ৭-৮ জনের সন্ত্রাসী বাহীনি অতর্কিত হামলা করে। তারা কেরোশিন ঢেলে আসবাবপত্রে অগ্নি সংযোগ করে। এ সময় হামলাকারীরা প্রেস ক্লাবের সভাপতিকে বেদম মারপিট করে পালিয়ে যায়। ঘটনার বিষয়ে আহত সাংবাদিক কায়েস উদ্দিন জানান, কদিন আগে প্রেস ক্লাবের সদস্যপদ নাবায়ন করা হয়। এতে আজাদ হোসেন মুরাদ নামে ওই কথিত সাংবাদিকের কোন পরিচয়পত্র না থাকায় তাকে বাদ দেয়া হয়। এরপর সে ক্ষিপ্ত হয়ে আমার মোবাইল ফোনে দেখে নেয়ারও হুমকি দেয়। এবং বলে এরপর আপনার পালা। এ ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই গতকাল রোববার দুপুরে সাংগঠনিক কাজ করার সময় প্রেস ক্লাবের ভিতরে প্রবেশ করে আমাকে মারপিট, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে সে ও তার লোকজন নিযে পালিয়ে যায়।
ঘটনারপর নওগাঁ সদর আসনের এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আব্দুল মালেক, পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন ও জেলা প্রশাসনের এনডিসি আব্দুল্লাহ আল মামুনসহ প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা প্রেস ক্লাব ভবন পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনের সময় সদর আসনের এমপি আব্দুল মালেক ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতার করা হোক। পুলিশ সুপার মোঃ ইকবাল হোসেন এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, এ ঘটনার সাথে জড়িত যেই হোকনা কেন কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না। মামলা হাতে পেলেই আসামী গ্রেফতারে অভিযানে নামবে পুলিশ।
এদিকে জেলা প্রশাসক ড. মোঃ আমিনুর রহমান মোবাইল ফোনে বলেন, আইনের উর্দ্ধে কেউ নয়। হামলাকারীরা যত শক্তি শালীই হোক তাদের আইনের আওতায় আনা হবে। এ ঘটনায় কায়েস উদ্দিন বাদি হয়ে আজাদ হোসেন মুরাদসহ ৭-৮ জনকে আসামী করে থানায় একটি মামলা দায়ের কারেছেন। এদিকে ঘটনায় জেলা প্রেস ক্লাবের পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা জানিয়ে রোববার রাতে জরুরী সভা আহবান করেন।

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

November 2017
S S M T W T F
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930  

সর্বশেষ খবর

………………………..

shares