গোয়াইনঘাটে শেষ মুহূর্তের প্রচার-প্রচারণা, টাকায় ভাসছে বিদ্রোহীরা

প্রকাশিত: ২:২৩ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৫, ২০১৯

গোয়াইনঘাটে শেষ মুহূর্তের প্রচার-প্রচারণা, টাকায় ভাসছে বিদ্রোহীরা

নিজস্ব প্রতিনিধি :: জমজমাট প্রচার-প্রচারণায় জমে উঠেছে সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদ। আগামী ১৮ মার্চ এ উপজেলায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী ও বিদ্রোহী প্রার্থী প্রতিদন্দ্বীতা করছেন। এই উপজেলায় দলীয় সিদ্ধান্তে বাইরে গিয়ে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন বিএনপির নেতারাও। ফলে তীব্র ভোটযুদ্ধের আশা করছেন স্থানীয়রা।

গোয়াইঘাটে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কিবরিয়া হেলাল দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন। তার বিপরীতে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমদ। ভোটের মাঠে আছেন গোয়াইনঘাট উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান শাহ আলম স্বপন। স্বতন্ত্র জামাল আহমদও ভোটের লড়াইয়ে আছেন।

নির্বাচনী রায় নিজেদের পক্ষে নিতে সকল প্রার্থীই দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি। দিনভর গণসংযোগ ও নির্বাচনী পথসভায় উপজেলাবাসীর সেবার লক্ষ্যে নিজের পক্ষে ভোট প্রার্থনা করছেন। প্রার্থীদের পক্ষে উপজেলাজুড়ে চলছে মাইকিং। স্ব-স্ব প্রার্থীর পক্ষে দেয়া হচ্ছে শিক্ষাগত যোগ্যতা, কর্মদক্ষতা ও চারিত্রিক সার্টিফিকেট।

স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহ আলম স্বপন বলেন, উপজেলাবাসীর উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে চাই। তাই আগামী ১৮ মার্চ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে জনগন আমাকে সেই সুযোগ দিবেন। জনগনের সমর্থন ও সহযোগিতা থাকলে আমার বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না। জনগন আমাকে জয়ী করবে।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী কিবরিয়া হেলাল বলেন, জনগন আমার শক্তি। জনগন নিয়েই আমি জয়ী হবো। বিদ্রোহী প্রার্থী সম্পাদক ফারুক আহমদ ও গোলাপ মিয়া বসে নেই। তারা নিজেদের বিজয় নিশ্চিত করতে টাকা ছড়ানোর ক্ষেত্রে এগিয়ে রয়েছেন । তাদের ভোটযুদ্ধের প্রধান হাতিয়ার হিসেবে ব্যাবহার করা হচ্ছে সেই কালো টাকা । সরেজমিনে লোকমূখে শুধু একটাই আওয়াজ ধ্বনিত হচ্ছে টাকা আর টাকা । অর্থ যার ভোট নাকি তার ! এতে সমাজের অবক্ষয় রোধে সিলেট জেলা নির্বাচন রির্টানিং কমকর্তা বা (ইসি)’র পক্ষ থেকেও নেওয়া হচ্ছেনা কোন আইনি পদক্ষেপ । জেলা প্রশাসনের ভুমিকাও প্রশ্নবিন্দ ।

এই উপজেলায় ভাইস-চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীদের নিয়ে গোয়াইনঘাট উপজেলায় ভোটারদের তেমন আগ্রহ কম। এখানে ভাইস-চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক জয়নাল আবেদীন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা দেলওয়ার হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা মুসলিম উদ্দিন ভুঁইয়া, মাও. গোলাম আম্বিয়া কয়েছ ও হীরক দেব।

মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান পদে উপজেলা পরিষদের বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আফিয়া বেগম, সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খোদেজা রহিম কলি, সাবেক ইউপি সদস্য বিনা বেগম, উপজেলা যুবলীগ নেত্রী পদ্মা দেবী। ভাইস-চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রত্যেকেই জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী।

Sharing is caring!

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সর্বশেষ খবর

………………………..