ক্রাইম সিলেট ডেস্ক : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে প্রথমে শপথ নেননি সিলেট-২ আসনের মোকাব্বির খান ও মৌলভীবাজার-২ আসনের সুলতান মোহাম্মদ মনসুর। এদের মধ্যে মোকাব্বির খান গণফোরামের ‘উদীয়মান সূর্য’ নিয়ে নির্বাচিত হলেও সুলতান মনসুর জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও গণফোরামের মনোনয়নে ‘ধানের শীষ’ নিয়ে নির্বাচিত হন।

নির্বাচনের পর বিএনপির বিজয়ীরা দলের সিদ্ধান্তে শপথ গ্রহণ থেকে বিরত থাকলেও তারা দু’জন শপথ নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেন। বিভিন্ন সভা-সমাবেশে এ দুজনের দেয়া বক্তব্য বেশ আলোচনা-সমালোচনারও জন্ম দেন। সবশেষ তারা ঘোষণা দেন সাত মার্চের আগেই শপথ নেবেন। সেই ঘোষণার প্রেক্ষিতে শপথ নেয়ার জন্য গত২ মার্চ স্পিকারকে চিঠি দেন তারা।

স্পিকারের দফতর চিঠি পাওয়ার পর তাদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ৭ মার্চ বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় শপথের সময় নির্ধারণ করা হয়। জাতীয় সংসদ ভবনের নিচ তলার শপথ কক্ষে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী তাদের শপথ বাক্য পাঠ করানোর কথা রয়েছে। তবে বুধবার বিকেলে গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসীন মন্টুর পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে মোকাব্বির খান বৃহস্পতিবার শপথ নিচ্ছেন না বলে জানানো হয়। মোকাব্বির খানও বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

কিন্তু তিনি শপথ না নিলেও সুলতান মোহাম্মদ মনসুর তার সিদ্ধান্তে অটল রয়েছেন। সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা বুধবার রাত ৯টায় গণমাধ্যমকে বলেন, ‘মোকাব্বির খান শপথ নেবে কি নেবে না সেটা তার ব্যাপার। আমি বেলা ১১টায় জাতীয় সংসদে শপথ নেবো। আমরা আলাদা চিঠি দিয়েছি, আলাদাভাবে শপথ নেবো।’

গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সুলতান মুহাম্মদ মনসুর আহমেদ মৌলভীবাজার-২ আসন থেকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে বিএনপির নির্বাচনী প্রতীক ধানের শীষ এবং মোকাব্বির খান সিলেট-২ আসনে গণফোরামের প্রতীক উদীয়মান সূর্য নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে নির্বাচিত হন।

এছাড়া জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বৃহৎ দল বিএনপি থেকে নির্বাচিত ছয় সংসদ সদস্য শপথ নেবেন না বলে আগেই জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।