সুনামগঞ্জের অবাধে অবৈধ গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি,রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার

প্রকাশিত: ১:১৮ পূর্বাহ্ণ, জুন ৭, ২০১৮

সুনামগঞ্জের অবাধে অবৈধ গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি,রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার

Sharing is caring!

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলের প্রতিটি বাজারে অবাধে অবৈধ ভাবে গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি করার হিরিক পরেছে। এমকি হাওরাঞ্চলের চায়ের ষ্টলেও এখন বিক্রি হচ্ছে এই গ্যাস ভর্তি সিলিন্ডার। গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি করতে হলে নির্দিষ্ট পরিমান জায়গা,তাপমাত্রা ও নিরাপত্তা রক্ষাসহ যে সকল নিয়ম মেনে ব্যবসা করা প্রয়োজন তার একটিও মানছে না জেলার হাওরাঞ্চলের প্রতিটি বাজারের ব্যবসায়ীরা। এদিকে হাজার হাজার টাকা রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার। আর অন্যদিকে যে কোন সময় অগ্নিকান্ডের ঘটনা গঠতে পারে সেই আশংকায় উৎবেগ আর উৎকণ্ঠায় রয়েছে বাজারের অন্যান্য ব্যবসায়ীরাসহ আগত ক্রেতগন।

জানাযায়,আধুনিক প্রযুক্তির কারনে জেলার হাওরাঞ্চলের প্রতিটি ঘরেই এখন গ্যাসের চুলা দিয়ে রান্নার কাজ করা হয়। এই কারনে গ্যাস ভর্তি সিলিন্ডারের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে জেলার হাওরাঞ্চলের প্রতিটি গ্রামে গ্রামে বাড়িতে ও বাজার গুলোর হোটেলে। এই চাহিদার কারনে প্রতিটি বাজারেই গ্যাস সিলেন্ডার বিক্রিও হচ্ছে প্রচুর পরিমানে। প্রতি গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি হচ্ছে ৯৫০-১০০০টাকা বর্তমানে কোন কোন বাজারে একটু বেশী। আর জেলার তাহিরপুর,জামালগঞ্জ,ধর্মপাশা,বিশ্বম্ভরপুর,দিরাই,শাল্লা,দক্ষিন সুনামগঞ্জ,সদর,ছাতক,দোয়ারা বাজার,জগন্নাথপুরসহ ১১টি উপজেলায় ছোট বড় প্রায় ৫শতাধিক বাজার রয়েছে প্রতিটি বাজারেই রয়েছে ১০-১২টির বেশী গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রয়কারী ব্যবসায়ী দোকান। যারা দীর্ঘ দিন ধরেই এই ব্যবসা করছে সরকার অনুমোদিত লাইসেন্স ছাড়াই। তারা খোলা জায়গায় ও রাস্তার পাশে রেখেই যে যার মত চালিয়ে যাচ্ছে এই ব্যবসা। এক ত সরকারী লাইসেন্স নেই ও নির্দিষ্ট অবস্থা না রেখেই প্রতিটি দোকানের সামনে ও পাশেই সারি বদ্ধ ভাবে মেঘ ও প্রচন্ড রৌদের মাঝে রেখে দিয়েছে। ফলে যে কোন সময় অনাখাংকিত দূর্ঘটনা গঠতে পারে। এরপরও এই বিষয়ে কারো যেন কোন দায় নেই। তাহিরপুর উপজেলার বাজারের ব্যবসায়ী সামায়ুন আহমদসহ জেলার বিভিন্ন বাজারের ব্যবসায়ীরা বলেন,গ্যাস ভর্তি সিলিন্ডার বিক্রির ব্যবসা করছে সবাই এখন। কিন্তু নাই লাইসেন্স নাই এই ব্যবসা করার অবস্থান ও নিরাপত্তার ব্যবস্থা। তার পরও সবাই বেশী লাভের আশায় এই ব্যবসায় যুঁেক পড়ছে। সচেতনতা ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা না রেখেই এই ব্যবসা করা উচিত না। না হলে যে কোন সময় দূর্ঘটনা গঠতে পারে। তাহিরপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা পুনেন্দ্র দেব,তাহিরপুর উপজেলায় এবার ধারাবাহিক ভাবে প্রতিটি সেক্টরে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে সকল প্রকার অবৈধ ব্যবসায়ীদের আইনের আওতায় আনা হবে। ইতিমধ্যে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেছি। কয়েকদিনের মধ্যে আরো করব।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

June 2018
S S M T W T F
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
30  

সর্বশেষ খবর

………………………..

shares