শাহপরানে ছিনতাইকৃত সুপারি উদ্ধার : মামলা হলেও গ্রেপ্তার শূন্য!

প্রকাশিত: ৯:৩৫ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ২১, ২০২৩

শাহপরানে ছিনতাইকৃত সুপারি উদ্ধার : মামলা হলেও গ্রেপ্তার শূন্য!

ক্রাইম প্রতিবেদক: সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের শাহপরান থানা এলাকায় চালক-কে গাছের সঙ্গে বেধে পিক-আপ ভর্তি ৪৫ বস্তুা সুপারি ছিনতাইয়ের মতো চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে। তবে ঘটনার আধা ঘন্টা অতিক্রমের সুযোগ দেয়নি শাহপরান থানা পুলিশ। থানা পুলিশের বিচক্ষণতায় সাড়াশি অভিযানে আধা ঘন্টার ভিতরে উদ্ধার করা হয়েছে ছিনতাইকৃত সুপারি।

 

এ চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে গত সোমবার (২০ নভেম্বর) সন্ধ্যা অনুমান আট ঘটিকার দিকে শাহপরান থানাধীন তামাবিল মহাসড়কের পীরের বাজারে।

 

এ সময় ছিনতাইকৃত ৪৫ বস্তুা সুপারি উদ্ধার সহ জড়িতদের গ্রেপ্তারের দাবিতে তাৎক্ষণিক তামাবিল মহাসড়কের পীরের বাজারে সড়ক অবরোধ করেন সাধারণ শ্রমিকরা। প্রায় ঘন্টা খানেক তামাবিল মহাসড়ক পুরোদমে অচল করে রাখেন তারা।

 

শাহপরান থানা পুলিশের দায়িত্বরত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আবুল খায়ের, (ওসি তদন্ত) ইন্দ্রনিল ভট্টাচার্য রাজন ও শাহপরান মাজার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এসআই শাহিন কবির খবর শুনে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে ৪নং খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের ৭নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সমুজ আলী ও ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল মছব্বিরের মধ্যস্থতায় শ্রমিকদের দাবি মেনে এক ঘন্টার ভিতরেই ছিনতাইকৃত সুপারি উদ্ধারসহ এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিলে তাতে সন্তুষ্ট হন শ্রমিকরা এবং ফের তামাবিল মহাসড়ক সচল হয়।

 

এরপরই থানা পুলিশের দায়িত্বরত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আবুল খায়েরের সার্বিক দিকনির্দেশনায় (ওসি তদন্ত) ইন্দ্রনিল ভট্টাচার্য রাজনের নেতৃত্বে পুলিশের একটি অভিযানিক দল অল্প সময়েই পীরের বাজারের অন্তর্ভুক্ত পীরেরচক এলাকার শাহ্ গরম দেওয়ান (রহ.) বিদ্যালয় প্রাঙ্গণের মাঠে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সাড়াশি অভিযান চালিয়ে ছিনতাইকৃত ৪৫ বস্তা সুপারির মধ্যে ৪৪ বস্তুা সুপারি উদ্ধার করেন। তবে তাৎক্ষণিক সময়ে জড়িত এমন কাউকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি।

 

এ ঘটনায় ছিনতাইয়ের শিকার পিক-আপের চালক রাসেল বাদি হয়ে পরদিন অথাৎ গতকাল মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জনকে আসামি করে শাহপরান থানায় একখানা লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন।

 

এদিকে তদন্তক্রমে ঘটনার সাথে জড়িত কয়েকজন ছিনতাইকারীর পরিচয় সনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ এবং তাদের গ্রেপ্তারে বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে বলে পুলিশের বিশস্ত সুত্র তা নিশ্চিত করেছে।

 

ট্রাক, পিকআপ, কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের স্থানীয় পর্যায়ের শ্রমিক নেতাদের অভিযোগ- এরকম ঘটনা আজ নতুন নয়। দিনের আলো শেষে অন্ধকার নেমে আসলেই সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলা, গোয়াইনঘাট উপজেলা ও কানাইঘাট উপজেলা থেকে আমাদের মালামাল ভর্তি গাড়ি সিলেটগামী হলে তামাবিল মহাসড়কের বটেশ্বর বাজার হইতে সুরমাগেইট বাইপাস পয়েন্টের ভিতরে বিভিন্ন স্থানে এরকম প্রায় সময়ই চালক-কে মারধর করে গাড়ি থেকে দফায় দফায় মালামাল ছিনতাইয়ের ঘটনা অতীতেও ঘটেছে। সরকার দলীয় স্থানীয় পর্যায়ের কিছু কতিপয় নেতাকর্মী এ সমস্ত ঘটনায় জড়িত। তবে তাদের শেল্টারদাতা হিসেবে নেপথ্যে রয়েছেন এই দলের কিছু ‘রাঘব বোয়াল’ এমনকি এই তালিকায় বাদ যাননি হাতেগোনা কয়েকজন জনপ্রতিনিধিও। আমরা সাধারণ শ্রমিক এই ছিনতাইকারী চক্রের কবল হইতে কিভাবে রেহাই পাবো তা উপরওয়ালাই যেনও ভালো জানেন বলে মন্তব্য অনেকের।

 

এ প্রসঙ্গে ছিনতাইয়ের শিকার পিক-আপের চালক রাসেলের মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি প্রতিবেদককে জানান- কানাইঘাট উপজেলার সুরাইঘাট থেকে সিলেটের কালীঘাটগামী পীরের বাজারের নিকটবর্তী চৌধুরীপাড়ার রাস্তার মুখে পৌঁছালে মোটরসাইকেলযোগে ১০/১২ জন অজ্ঞাতনামা লোক আমার গাড়ির গতিরোধ করে জোরপূর্বক আমাকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে পীরের বাজারের নিকটবর্তী বলাকা আবাসিক প্রকল্পের ভিতরে একটি গাছের সঙ্গে বেধে মারধর করে আমার সঙ্গে থাকা নগদ টাকাসহ পিক-আপে ভর্তি ৪৫ বস্তুা সুপারির গাড়ি তারা ছিনতাই করে পালিয়ে যায়।

 

থানা পুলিশের বিচক্ষণতায় ছিনতাইকৃত সুপারি খুব অল্প সময়ে উদ্ধার হওয়াতে থানা পুলিশের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে তিনি আরোও জানান- এ ঘটনায় জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেপ্তারের জন্য থানা পুলিশ সহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করি।

 

এ প্রসঙ্গে সিলেট জেলা ট্রাক, পিকআপ, কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়ন রেজি নং-২১৫৯ এর অন্তর্ভুক্ত শাহপরান থানা উপ-কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ বাবলা আহমদ বাবুলের মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি প্রতিবেদককে জানান- এ ঘটনায় থানা পুলিশ আমাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা করেছেন। এছাড়া অবিলম্বেই ছিনতাইকৃত সুপারি তারা উদ্ধার করেছেন। এ ঘটনায় পিক-আপ চালক থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। ইতিমধ্যে তদন্তক্রমে ঘটনার সাথে জড়িত ৬/৭জন ছিনতাইকারীকে সনাক্ত করা হয়েছে এবং তাদের গ্রেপ্তারে থানা পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তবে থানা পুলিশের এমন বিচক্ষণতায় সত্যিই সাধারণ মানুষের নিকট উজ্জ্বল হয়েছে গোটা পুলিশ বাহিনীর ভাবমূর্তি। পরিশেষে শ্রীঘই এ ঘটনায় জড়িত ছিনতাইকারীদের গ্রেপ্তার করে সাধারণ শ্রমিকদের জীবন-জীবিকা নির্বাহের সুন্দর পরিবেশ তৈরির সুযোগ করে দেওয়ার জন্য থানা পুলিশ সহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

 

এ প্রসঙ্গে শাহপরান থানা পুলিশের দায়িত্বরত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আবুল খায়ের-এর সরকারি সেলফোনে যোগাযোগ করলে তিনি ছিনতাইকৃত সুপারি উদ্ধার ও মামলা রুজুর প্রক্রিয়া চলমান নিশ্চিত করে প্রতিবেদককে জানান- এ ঘটনার আধা ঘন্টার ভিতরেই আমাদের সাড়াশি অভিযানে ছিনতাইকৃত সুপারি উদ্ধার করা হয়। পাশাপাশি জড়িতদের গ্রেপ্তারে থানা পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

 

গোটা সিলেট জুড়ে চাঞ্চল্যকর সৃষ্টি হওয়া এ ঘটনায় প্রায় দুই দিন অতিক্রম হতে চলছে কিন্তু এখনও গ্রেপ্তার শূন্য। তাহলে সত্যি কি ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হবে থানা পুলিশ? এমন প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সচেতন মহলে..!

 

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বাদী পক্ষের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে থানায় নিয়মিত মামলা রুজুর প্রক্রিয়া চলমান এবং ছিনতাইয়ের সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তারে থানা পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Sharing is caring!

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

November 2023
S S M T W T F
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930  

সর্বশেষ খবর

………………………..