সিলেটে ছাত্রলীগের দুই শতাধিক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত: ৬:০১ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৩, ২০২৩

সিলেটে ছাত্রলীগের দুই শতাধিক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

ক্রাইম সিলেট ডেস্ক: সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ দুই শতাধিক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য ও সিলেট জজ কোর্টের অ্যাসিস্ট্যান্ট পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) অ্যাডভোকেট প্রবাল চৌধুরী।

 

আজ রোববার সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের ৫৫ জন নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরও ২০০-২৫০ জনকে আসামি করে তিনি সিলেট মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (১ম) আদালতে মামলা দায়ের করেন।

 

গত ১০ আগস্ট রাতে অ্যাডভোকেট প্রবাল চৌধুরী পূজনের উপর হামলার ঘটনায় আদালতে এ মামলা দায়ের করেন তিনি।

 

পরে দুপুরে সিলেট মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (১ম) আদালতের বিচারক সুমন ভূঁইয়া কোতোয়ালি থানা পুলিশকে এজাহারটি দ্রুত বিচার আইনে নথিভুক্ত করার নির্দেশ দেন।

 

মামলায় অ্যাডভোকেট প্রবাল চৌধুরী যে ৫৫ জনের নাম উল্লেখ করেছেন তারা হলেন- সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সভাপি নাজমুল ইসলাম (৩৪), সাধারণ সম্পাদক রাহেল সিরাজ (৩০), মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নাঈম আহমদ (৩২), ইসফাকুর নূর চৌধুরী (২৪), আহমদ উদ্দিন সাজন (২৬), তানভীর আহমেদ (৩৮), আনহার ওরফে শোটার আনছার (২৯), কাউন্সিলর রুহেল আহমদ, শান্ত আহমদ (২৬), মিছবাউল করিম রফিক (২৮), অনিক (২৪), জাবেদ আহমদ চৌধুরী (৩৫), হাসান মাহমুদ (৩০), মান্না কোরেশী (২৪), সাগর (২৪), মুহিত খান (২৪), আহমেদ ইয়াসিন (২৬), কামিল রাজা (২৫), জাকিরুল ইসলাম জাকির (৩০), রাসেল আহমেদ (২৭), মুহিউদ্দিন রাসেল (৩০), সাগর সরকার (২৮), নাসিম চৌধুরী (২২), শাহ আলম স্বাধীন (২৭), ইয়াছিন আহমেদ মারুফ (২৮), আহমদ আলী (২৮), আশরাফুল আম্বিয়া (২৮), জাহিদুল হক তাহমিদ (২৬), মো. এমাদ (২৪), মনিউল আলম (২৭), মাহবুবুর রহমান চৌধুরী রেমু (২৮), কাজী জুবায়ের আহমদ (২৬), মো. আকাশ আর চৌধুরী (২২), আকাশ ঘোষ (২৬), বিরাজ দাস (২৫), নাঈম আহমদ (২৬), এস.কে সাজু (২৭), মো. আকিব চৌধুরী (২৫), সাকির হোসেন শাহীন (২৬), সালমান (২০), বিশাল দাস (২৫), খন্দকার মাহমুদুল হাসান জনি (২৫), ফরহাদ খান (২৬), রেদওয়ান আহমেদ রেজা (২৫), রাতুল কর পুরকায়স্থ (২২), সৌরভ (২০), আহাদ (২২), আতিকুল আলম (২৯), সারওয়ার আহমদ নাহিদ (২৫), আজিজুর রহমান মুন্না (২৬), কনুজ ধর (২০), জিহান আহমদ (৩৩), এম ইমন সাহেদ (২৮), আলতাফ হোসেন মুরাদ (৩০) ও রায়হান খান সুহান (২৬)।

 

অ্যাডভোকেট প্রবাল চৌধুরী অভিযোগ করে গণমাধ্যমকে বলেন, গত ১০ আগস্ট রাত আটটার দিকে তার সিলেট মহানগরের দাঁড়িয়াপাড়ার বাসায় হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করে সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। হামলায় আহত হন পূজন। এমনকি তিনি স্প্লিন্টারবিদ্ধ হয়েছেন বলেও অভিযোগ করেন।

 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি ও নেতাকর্মীদের চিনি চোরাচালানের সঙ্গে সম্পৃক্ততা নিয়ে সমালোচনার জেরে এই হামলা করা হয় বলে দাবি তার।

 

এদিকে সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নাজমুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, আমরা উড়ো খবরে জানতে পেরেছি একজন ব্যক্তি কোর্টে মামলা দায়ের করেছেন। আমরা যারা ছাত্র রাজনীতি করি আমরা আমাদের আদর্শ এবং নৈতিক জায়গায় ঠিক আছি। আমরা মনে করি এটি একটি ষড়যন্ত্র। আমরা আশা করি যিনি মামলা করেছেন তিনি খুব শিগগির তার ভুল বুঝতে পারবেন।

 

অন্যদিকে, প্রবাল চৌধুরীর উপর হামলার ঘটনা খতিয়ে দেখার জন্য শুক্রবার একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। চার সদস্যের কমিটিকে দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রতিবেদন দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

Sharing is caring!

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সর্বশেষ খবর

………………………..