জৈন্তাপুরের আলোচিত সুপারী ছিনতাই : অবশেষে মুখ খুলেছে পুলিশ

প্রকাশিত: 3:58 PM, July 19, 2021

জৈন্তাপুরের আলোচিত সুপারী ছিনতাই : অবশেষে মুখ খুলেছে পুলিশ

ক্রাইম সিলেট ডেস্ক : জৈন্তাপুরের বহুল আলোচিত সুপারি ছিনতাইয়ের ঘটনা নিয়ে অবশেষে মুখ খুলেছে পুলিশ। চট্টগ্রামের কোতোয়ালী থানা পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার তিনজনের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে এই চক্রের সঙ্গে জড়িত সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলা সদরের ব্যবসায়ী সিদ্দিক, শামছুল, শাহীন ও দুলালকে গ্রেফতারে পুলিশ অভিযান চলছে। এদিকে, জৈন্তাপুর থেকে গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়া তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে, আদালত তাদের কারাগারে পাঠিয়ে পরবর্তীতে রিমান্ড শুনানির দিন ঠিক করবেন বলে জৈন্তা বার্তাকে জানিয়েছেন চট্টগ্রামের কোতোয়ালী থানার ওসি নেজাম উদ্দিন।

জানা যায়, চট্টগ্রাম থেকে ট্রাকে সুপারি নিয়ে পৌঁছে দেওয়ার কথা ছিল সিলেটের কাজীর বাজারে। কিন্তু দুইদিন পর সে ট্রাক পাওয়া যায় পরিত্যক্ত অবস্থায়। এর এক সপ্তাহ পর পুলিশের দুই দিনের অভিযানে ২০০ বস্তা সুপারির মধ্যে মিলেছে ১৮২টি। চট্টগ্রামের কোতোয়ালী থানা পুলিশের টানা অভিযানে বৃহস্পতিবার রাতে সিলেটের জৈন্তাপুর ও শুক্রবার রাতে কানাইঘাট এলাকা থেকে এসব সুপারি উদ্ধার হয়েছে। এসময় গ্রেপ্তার করা হয়েছে বাবা ও ছেলেসহ ৩ জনকে। এরা হলেন- ফয়সাল আহম্মেদ (২৭), আজিজুল হক (৫২) ও তার ছেলে লোকমান হোসেন টুটুল (২৩)।

জানা গেছে, ফয়সাল আহমদ মূল হোতা জৈন্তাপুর উপজেলা সদরের ব্যবসায়ী নামদারী চোরাকারবারী সিদ্দিকের ম্যানাজার। জৈন্তাপুর উপজেলা সদরের আজিজুল হক তার ছেলেকে গ্রেফতার করা হয়েছে মূলত তাদের বসত ঘর থেকে সুপারী উদ্ধার করার কারনে। তবে তাদের পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে আজিজুল হকের বসত ঘরের একটি কক্ষ গুদাম হিসেবে ভাড়া নিয়েছেন চোরকারবারী শাহীন। ভাড়া দেয়া ঐ কক্ষ থেকে পুলিশ সুপারী উদ্ধার করার সময় ঘরের মালিক ও তার পুত্রকে আটক করে নিয়ে যায়।

কোতোয়ালী থানার ওসি মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন জানান, এরা একটি সংঘবদ্ধ চক্র। যার সঙ্গে জড়িত আছে ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যানের চালক, মালিক ও ভাড়ার মধ্যস্ততাকারীরা।তিনি বলেন, “তারা চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জ, আসাদগঞ্জ বন্দর এলাকা থেকে পরিবহন করা ভোগ্যপণ্যসহ বিভিন্ন মালামাল ভাড়ায় পৌঁছে দেওয়ার জন্য নিয়ে সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলার ভারতীয় সীমান্তবর্তী এলাকায় নিয়ে বিক্রি করে দেয়।

“পরে মালামাল বহনকারী ট্রাকটি কোনো স্থানে ফেলে দেয়। মূলত যেসব পণ্য বিক্রি করে ট্রাক কিংবা কাভার্ড ভ্যানের দামের চেয়েও বেশি লাভ হবে সে ধরনের মালামাল নেওয়ার টার্গেট করে।”

এই চক্রটি সুপারির চালানটি ‘আত্মসাৎ’ করে সিলেটের কুলাউড়ায় ট্রাকটি পরিত্যক্ত অবস্থায় ফেলে যায় জানিয়ে তিনি বলেন, “অভিযানে মোট ৫০ লাখ টাকার সুপারি উদ্ধার করা হয়েছে যা ওই ট্রাকের দামের চেয়ে বেশি।”

ওসি জানান, গত ৮ জুলাই চট্টগ্রামের পাইকারী বাজার খাতুনগঞ্জ থেকে ২০০ বস্তা সুপারি সিলেটের কাজীর বাজারে পৌঁছানোর দায়িত্ব নিয়ে একটি ভাড়া করা ট্রাকে সেগুলো পাঠিয়েছিলেন পরিবহন ব্যবসায়ী আব্দুল ওহাব।

“কিন্তু পরদিন রাত পর্যন্ত ট্রাকটি না পৌঁছানোয় ট্রাক ভাড়ার মধ্যস্ততাকারীকে ফোন করেন ওহাব। এসময় তার ফোন বন্ধ পেয়ে নানাভাবে খোঁজ নিয়ে সিলেটের কুলাউড়া উপজেলায় ট্রাকটির সন্ধান পেলেও সুপারি পাননি।”

এ ঘটনায় গত ১১ জুলাই কোতোয়ালী থানায় একটি মামলা করেন ওহাব। মামলায় ট্রাকের মালিক শেবলু মিয়া (৪৫), মধ্যস্ততাকারী ভুটু মানিক (২৮) ও চালক মো. জাহাঙ্গীরকে (৩৮) আসামি করা হয়।

ওসি নেজাম উদ্দিন জানান, তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে ভুটু মিয়া সুপারিগুলো নির্দিষ্ট গন্তব্যে না নিয়ে ট্রাক মালিক শেবলু ও চালক জাহাঙ্গীরের প্ররোচনায় বিক্রি করে দিয়েছে।

পরে বৃহস্পতিবার রাতে সিলেটের জৈন্তাপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করা ফয়সাল, আজিজুল ও লোকমানের কাছ থেকে ১৬২ বস্তা সুপারি উদ্ধার করা হয় বলে জানান তিনি।

তাদের জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে জানা যায় কানাইঘাট উপজেলা সদর ইউনিয়নে জৈন্তাপুরের শাহীন ও শামছুল নামে দুই ব্যক্তির ভাড়া করা গুদামে বাকি সুপারিগুলো আছে। পরে সেখান থেকে আরও ২০টি বস্তা উদ্ধার করা হয়।

চট্টগ্রাম কোতোয়ালী থানার পুলিশ কর্মকর্তা নেজাম উদ্দিন বলেন, “তারা এধরনের চোরাই মালামাল স্বল্প মূল্যে কিনে নিজেরা রাখেন। পরে সেগুলো চোরাই পথে ভারতে পাচার করে দেন।”

এ ঘটনায় এজাহারে নাম থাকা ট্রাকের মালিক, চালক ও মধ্যস্থাতাকারীসহ তিন আসামি এবং তদন্তে নাম আসা জৈন্তাপুর উপজেলার ব্যবসায়ী নামদারী চোরাকারবারী চারজনকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান চলছে বলে জানান তিনি।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

July 2021
S S M T W T F
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31  

সর্বশেষ খবর

………………………..