পুলিশে যোগদান করে আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ এসআই আকবর!

প্রকাশিত: ৫:৫২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৪, ২০২০

পুলিশে যোগদান করে আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ এসআই আকবর!

Sharing is caring!

ক্রাইম সিলেট ডেস্ক : রায়হান হত্যার অভিযোগে অভিযুক্ত এসআই আকবরের পরিবার নিয়ে দেশ জুড়ে চলছে তোলপাড়। এলাকাবাসী জানিয়েছেন চাকরি পাওয়ার পর যেন হঠাৎ আলাদীনের চেরাগ পেয়েছিলেন আকবর। আর সিলেটে আসে যেন আঙ্গুল ফুলে কালা গাছ। জানা গেছে, বিএনপির রাজনীতির সাথে সক্রিয় ভাবে জড়িত ছিলেন বরখাস্ত হওয়া এসআই আকবর এর বাবা । এমনকি পেশায় শিক্ষক হয়েও এক ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগে আকবরের বাবা জেল খাটেন।

চাকরিতে যোগদান করেই সিলেটে শিবির ঘরনার ইউটিউব চ্যানেল গ্রীন বাংলায় সাবেক শিবির নেতা মুরাদের নেতৃত্বে আঞ্চলিক নাটকে যোগদান করেন আকবর। মুরাদ শিবির করতেন এটি জেনেই তিনি কেন এই নাট্য দলে যোগ দেন তা এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রশ্ন ঘুরে বেড়াচ্ছে । মূলত নাটকে অভিনয়ের মাধ্যমেই তিনি সিলেটের মানুষের কাছে একজন সৎ পুলিশ হিসেবে পরিচিতি পান। বাস্তবে তিনি অপরাধের স্বর্গরাজ্য গড়ে তুলেন পুলিশ ফাড়িকে ।

এদিকে, আকবর আর তার পরিবারের ব্যাপারে মুখ খুলতে শুরু করেছেন স্থানীয়রা। তারা বলছেন, চাকরিতে যোগদানের পর এখন অঢেল সম্পদের মালিক আকবর। তার পরিবার নিয়েও আছে নানা বিতর্ক। যদিও স্থানীয়দের অভিযোগ মানতে নারাজ আকবরের স্বজনরা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আশুগঞ্জের বগাইড় গ্রামে বরখাস্ত হওয়া এসআই আকবর হোসেনের একটি আলিশান বাড়ি রয়েছে। পুলিশে যোগদানের পরই যেন আলাদিনের চেরাগ পেয়ে যান তিনি। অল্প দিনেই নিজ গ্রামে গড়ে তোলেন প্রচুর সম্পদ-সম্পত্তি।

সিলেটে পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে যুবকের মৃত্যুর ঘটনায় আকবরের সংশ্লিষ্টতার খবর এরই মধ্যে ছড়িয়েছে তার এলাকায়। এ নিয়ে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা। স্থানীয়রা জানান, আকবরের পুরো পরিবার এলাকায় বিতর্কিত। তার বাবা ধর্ষণ মামলার আসামি ছিলেন। কারাগারেও ছিলেন একমাস।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক যুবক বলেন, আকবরের বাবা স্কুলশিক্ষক ছিলেন। শিক্ষকতায় থাকাকালীন তিনি এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করেন। পরে ওই ঘটনা নিয়ে মামলা হয়েছিল। সেই মামলায় তাকে সাজাও দেওয়া হয়েছিল।

একজন আইনের সেবক হয়ে আকবরের এমন কাণ্ডে হতবাক স্থানীয় আওয়ামী লীগ। বিষয়টি দুঃখজনক বলছেন নেতারা। সুষ্ঠু তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন তারা।

স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, আমরা আশুগঞ্জবাসী লজ্জিত। এটি একটি ন্যাক্কারজনক এবং দুঃখজনক ঘটনা। এ ধরনের ঘটনা যেন পুনরায় না ঘটে তাই সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।

এদিকে, আকবরের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ বিশ্বাস করছে না তার পরিবার। তাদেরও দাবি ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হোক। আকবরের ভাই বলেন, আমার ভাই এ ধরনের কাজ কখনও করতে পারেন না। আমি চাই এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হোক। আমরা নিউজের মাধ্যমে এ ঘটনা জানতে পেরেছি। কিন্তু কোনো সত্যতা পাইনি। আমার ভাই আসলে কিছুই বলেননি যে, আমি এটা করেছি, ওটা করিনি। এভাবে আমরা আসলে কিছুই জানতে পারিনি।

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

October 2020
S S M T W T F
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31  

সর্বশেষ খবর

………………………..

shares