বিশ্বনাথে আ’লীগ নেতা বাবুল মিয়ার উপর অতর্কিত হামলা

প্রকাশিত: ১১:১৩ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৬, ২০২০

বিশ্বনাথে আ’লীগ নেতা বাবুল মিয়ার উপর অতর্কিত হামলা

Sharing is caring!

বিশ্বনাথ প্রতিনিধি :: সিলেটের বিশ্বনাথে পূর্ব বিরুধের জের ধরে প্রতিপক্ষের করা অতর্কিতভাবে হামলায় গুরুত্বর আহত হয়েছেন উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল মিয়া। বুধবার রাতে বাজার থেকে উপজেলার শ্রীধরপুর গ্রামস্থ নিজ বাড়িতে ফেরার পথিমধ্যে শ্রীধরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনস্থ কাচা রাস্তার উপর এ হামলা করা হয়।
এঘটনায় বুধবার রাতেই আওয়ামী লীগ নেতা বাবুল মিয়া বাদী হয়ে ৩ জনের নাম উল্লেখ করে ও আরো ৩ জনকে অজ্ঞাতনামা অভিযুক্ত করে বিশ্বনাথ থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং ২১ (তাং ২৫.০৩.২০ইং)। মামলার অভিযুক্তরা হলেন- একই উপজেলার শ্রীধরপুর গ্রামের আনাই আলীর পুত্র রাহেল আলী (৩৫), ওয়ারিছ আলীর পুত্র কয়ছর আলী (৩৫), মৃত আনোয়ার আলীর পুত্র জাহেদ আলী (৩৬)।
বাদী তার লিখিত অভিযোগ উল্লেখ করেছেন, বাবুল মিয়া শ্রীধরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি থাকাকালীন অবস্থায় প্রায় বছরখানেক পূর্বে অভিযুক্তরা বিদ্যালয় মাঠে একটি অনুষ্ঠান করতে চায়, কিন্তু ওই সময় বিদ্যালয় মাঠে শিক্ষার্থীদের একটি অনুষ্ঠান থাকায় তাদেরকে (অভিযুক্ত) বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠান করতে না দেওয়ায় বাদীর (বাবুল) সাথে অভিযুক্তদের শত্রুতা সৃষ্টি হয়। এরপর থেকে অভিযুক্তরা বিভিন্ন সময়ে বাদীকে (বাবুল) হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছে। এনিয়ে আ’লীগ নেতা বাবুল মিয়া প্রায় দু’মাস পূর্বে বিশ্বনাথ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এতে অভিযুক্তরা বাদীর উপর আরোও ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। এরই জের ধরে বৃহস্পতিবার রাত ৭টার দিকে বিশ্বনাথ বাজার থেকে মোটর সাইকেলযোগে নিজ বাড়িতে ফেরার পথিমধ্যে শ্রীধরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনস্থ কাচা রাস্তার পৌঁছা মাত্র অভিযুক্তরা তাদের দল-বল নিয়ে পূর্ব পরিকল্পনা অনযায়ী বাদীর গতিরোধ করে তার উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এসময় বাদীর ব্যবহৃত মোবাইল সেট ও পকেটে থাকা ২ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায় অভিযুক্তরা। আর এবিষয়ে থানায় অভিযোগ করলে অভিযুক্তরা বাদী ও তার পরিবারের সদস্যদের হত্যা করার হুমকি দিয়ে গেছে বলে লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেছেন বাদী।
আহত আওয়ামী লীগ নেতা বাবুল মিয়া বলেন, অভিযুক্তরা বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের রাজনীতির সাথে জড়িত। রাজনৈতিকভাবে ঘায়েল করতে না পেরে আমাকে হত্যা করার উদ্দেশ্যেই রাতের আধাঁরে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী অতর্কিতভাবে হামলা করা হয়েছে।
বিশ্বনাথ উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল মিয়ার উপর হামলায় ঘটনায় মামলা দায়েরের সত্যতা স্বীকার করেছেন থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) শামীম মুসা।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সর্বশেষ খবর

………………………..

shares