লোভাছড়ায় অভিযানে দেড় কোটি টাকার যন্ত্রপাতি ধ্বংস: বহাল তবিয়তে তমিজ বাহিনী

প্রকাশিত: 8:41 PM, January 21, 2020

লোভাছড়ায় অভিযানে দেড় কোটি টাকার যন্ত্রপাতি ধ্বংস: বহাল তবিয়তে তমিজ বাহিনী

Sharing is caring!

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: সিলেটের কানাইঘাট লোভাছড়া পাথর কোয়ারীতে দ্বিতীয় দিনের মতো মঙ্গলবার টাস্ক ফোর্সের অভিযান চালানো হয়েছে। টাস্ক ফোর্সের অভিযানে গত দু’দিনে কোয়ারীতে অভিযান চালিয়ে প্রায় দেড় কোটি টাকা মূল্যের পাথর উত্তোলনের যান্ত্রিক বাহন, মেশিনারী যন্ত্রপাতি ও পাথর উত্তোলনের প্লাষ্টিক পাইপ পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয়েছে। কিন্তু কানাইঘাট উপজেলার সীমান্তবর্তী ১ নং লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউনিয়ন’র সাউদ গ্রামের মশাহিদ আলীর পুত্র তমিজ উদ্দিন বাহিনীর কোয়ারী এলাকায় এখন পর্যন্ত কোন অভিযান দেওয়া হয়নি।

বেশ কয়েকটি পাথরের গর্তের বাধ কেটে ফেলে পানিতে তলিয়ে দেওয়া হয়েছে। টাস্ক ফোর্সের অভিযানের ফলে কোয়ারীতে পাথর উত্তোলন প্রায় বন্ধ রয়েছে। জানা যায়, গত সোমবার ও গতকাল মঙ্গলবার দিনভর কোয়ারীর বিভিন্ন এলাকায় একাধিক টিম গঠন করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ বারিউল করিম খানের নেতৃত্বে সিলেট জেলা ও কানাইঘাট থানা পুলিশের অর্ধ শতাধিক সদস্য ও লোভছড়া বিজিবি ক্যাম্পের সদস্যদের সমন্বয়ে অভিযান চালানো হয়। গতকাল মঙ্গলবার দুপুর ১২টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত আবারো কোয়ারীতে টাস্কফোর্সের অভিযান চালানো হয়। পুলিশ ও বিজিবি সদস্যদের পাশাপাশি উপজেলা ভূমি অফিসের কর্মকর্তাদের নিয়ে এ অভিযান চালান নির্বাহী কর্মকর্তা বারিউল করিম খান।

এ সময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ আনোয়ার জাহিদ। দ্বিতীয় দিন লোভাছড়া চা-বাগানের ঘাট থেকে শুরু করে ভালুকমারা পর্যন্ত কোয়ারীর প্রায় দুই কিলোমিটার এলাকায় অভিযান কালে ৩টি এস্কেভেটর, ১টি ফেলোডার, ১৭টি হেভি ডিউটি পাম্পিং মেশিন ধ্বংস ও পুড়িয়ে ফেলা হয় এবং শত শত ফুট পাথর উত্তোলনের পানি সেচের প্লাষ্টিক পাইপ কেটে ফেলা হয়। পাথর কোয়ারীতে অভিযানের সময় পাথর উত্তোলন বন্ধ করে পাথর শ্রমিকরা নিরাপদ স্থানে চলে যায় এবং চটকে পড়েন পাথর ব্যবসায়ীরাও। নির্বাহী কর্মকর্তা বারিউল করিম খান স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, ইজারার শর্ত লংঘন করে ঝুকিপূর্ণ ভাবে বড় বড় গর্ত করে যান্ত্রিক বাহন দিয়ে পাথর উত্তোলনের ঘটনায় দ্বিতীয় দিনের মতো কোয়ারীতে এ অভিযান চালানো হয়েছে। বেআইনী ভাবে পাথর উত্তোলনে যান্ত্রিক বাহন মেশিনারী যন্ত্রপাতি ব্যবহার করায় দুইদিনের অভিযানে প্রায় দেড় কোটি টাকা মূল্যের যান্ত্রিক বাহন ধ্বংস করা হয়েছে।

এ অভিযান চলমান থাকবে বলে তিনি জানান। এদিকে লোভাছড়া আদর্শ পাথর ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি নাজিম উদ্দিন ও সাধারন সম্পাদক ফখরুল ইসলাম জানিয়েছেন, কোয়ারীতে প্রশাসনের অভিযানে তাদের আপত্তি নেই। ইজারার শর্তানুযায়ী ৩০ ফুট পর্যন্ত খনন করে পাথর উত্তোলনের অনুমতি রয়েছে। কিন্তু তারপরও ১৫/২০ ফুটের মতো অনেক গর্ত অভিযানের সময় বন্ধ ও বাধ কেটে ফেলা সহ পানি সেচের মেশিন ধ্বংস ও পুড়িয়ে ফেলার কারনে তাদের লক্ষ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি সাধিত হয়েছে। হাজার হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছেন। কোয়ারীর ইজারাদার মস্তাক আহমদ পলাশের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন ইজারার সকল শর্ত মেনে পাথর উত্তোলনের জন্য তিনি পাথর ব্যবসায়ীদের নির্দেশনা সহ ফরমে ব্যবসায়ীদের স্বাক্ষর নিয়েছেন। কোয়ারীতে কারিগরি উপদেষ্ঠা নিয়োগ দিয়ে তদারকী সহ কারিগরি উপদেষ্ঠা কর্তৃক ইজারার শর্ত মোতাবেক পাথর উত্তোলনের চিঠি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়েছে। বেশির ভাগ পাথর ব্যবসায়ী শর্ত মেনে পাথর উত্তোলন করছেন। যারা ইজারার শর্ত অমান্য করে পাথর উত্তোলন করছে তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন ব্যবস্থা নিলে তার কোন আপত্তি থাকবে না।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সর্বশেষ খবর

………………………..