প্রতাপুর সীমান্তে ভারতীয় খাসিয়ার গুলিতে দুই বাংলাদেশি আহত, নিখোঁজ ১

প্রকাশিত: ৩:৫০ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৯, ২০১৯

প্রতাপুর সীমান্তে ভারতীয় খাসিয়ার গুলিতে দুই বাংলাদেশি আহত, নিখোঁজ ১

Sharing is caring!

সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার প্রতাপুর সীমান্তে ভারতীয় খাসিয়ার গুলিতে ২বাংলাদেশী নাগরিক আহত ও অপর ১ নাগরিক নিখোঁজ রয়েছে।

স্থানীয় ও বিজিবি সুত্রে জানাযায়, সোমবার ভোঁর রাতে সীমান্তের নকশিয়া পুঞ্জি এলাকা দিয়ে ভারতীয় সুপারি চুরির উদ্যেশ্যে ৮ বাংলাদেশী ভারতের অভ্যন্তরে প্রবেশ করলে ভারতীয় খাসিয়ারা বাংলাদেশী চোরদ্বয়ের উপস্থিতির টের পেলে এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়লে ২ বাংলাদেশী নাগরিক গুরুত্বর আহত হন। একপর্যায়ে বাংলাদেশী নাগরিকরা পালিয়ে পূনরায় বাংলাদেশে প্রবেশ করলে প্রতাপুর বিজিবি টহলরত টিম আহতাবস্থায ১জনকে আটক করে।

ভারতীয় খাসিয়ার গুলিতে আহতরা হলেন উত্তর প্রতাপপুর গ্রামের মুছব্বির আলীর পুত্র মনির উদ্দিন(২৫),একই গ্রামের আরব আলীর পুত্র জামিল আহমদ( ২৬),জহুর আলীর পুত্র সাহেদ আহমদ(২৮),দক্ষিন প্রতাপপুর গ্রামের রশিদ আলীর পুত্র মাবুব আহমদ(২৭),পশ্চিম ডালার পাড় গ্রামের ফয়জুল ইসলামের পুত্র রুবেল আহমদ(২৪),হাজিপুর গ্রামের সামছু মিয়ার পুত্র বশির উদ্দিন(৩০),আব্দুল জলিলের পুত্র নাজিম উদ্দিন এবং সাইফুল ইসলাম পিতা অঞ্জাত।

এঘটনায় পুলিশী গ্রেপ্তার ও আইনি জটিলতা এড়াতে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় নাজিম উদ্দিন নামের এক বাংলাদেশী নিখোঁজ রয়েছেন। অপর দিকে আহতরা সরকারী কিংবা স্থানীয় কোন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেনা বলে জানা গেছে। জানতে চাইলে প্রতাপপুর সীমান্ত ফাঁড়ির ক্যাম্প কমান্ডার হারুনুর রশিদ জানান, প্রতাপপুর সীমান্তের ভারতীয় অভ্যন্তরে বিপুল পরিমাণ ভারতীয় সুপারি মজুদ রয়েছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে জিরো পয়েন্ট পেরিয়ে ভারত অভ্যন্তর থেকে সুপারি আনতে গেলে খাসিয়ারা এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়লে দুজনকে গুরুত্বর আহত করলে আমরা ১জনকে আটক করতে সক্ষম হই এবং বাকীরা পালিয়ে যায়।

ভারতীয় খাসিয়া কর্তৃক গুলি বর্ষণের খবর নিশ্চিত করে গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিশ্বজিত কুমার পাল জানান, সীমান্তের ওপার থেকে রাতের আধাঁরে সুপারি চুরি করে নিয়ে আসার সময় ভারতীয় খাসিয়া কর্তৃক গুলি বর্ষনের খবর শুনেছি। ইতিপূর্বে আহত এবং নিখোঁজ ব্যক্তিদের তথ্যও পেয়েছি। সরাসরি সীমান্ত লঙ্গন করে যারা অবৈধ ভাবে ব্যাবসা কিংবা চুরি করতে যায় তাদের বিরোদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সেই সাথে উপজেলার সকল বিবিজি ক্যাম্প কমান্ডারদের কড়া নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে যাহাতে স্বার্বক্ষনিক সীমান্ত এলাকা নিশ্চিদ্র নিরাপাত্তার চাঁদরে বেষ্টিত থাকে।

তবে তামাবিল ক্যাম্প কমান্ডার হুমাইউন রশিদ আটক সাহেদ আহমদকে নিয়ে থানায় আসলে গনমাধ্যম কর্মীদের ছবি তুলতে নিষেধ দিলে গনমাধ্যম কর্মীরা থানা চত্বর থেকে বেরিয়ে আসেন।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সর্বশেষ খবর

………………………..

shares