‘কিতা খবর, ভালানি’ সিলেট মহানগর যুবলীগের সম্মেলনে ওমর ফারুক

প্রকাশিত: ৮:১৭ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৭, ২০১৯

‘কিতা খবর, ভালানি’ সিলেট মহানগর যুবলীগের সম্মেলনে ওমর ফারুক

Sharing is caring!

অনুষ্টানে যুবলীগের সভাপতি ওমর ফারুক চৌধুরী প্রথমেই সিলেটি ভাষায় জানতে চান ‘কিতা খবর, ভালানি’ । সাথে সাথে করতালিতে মুখরিত হয়ে উঠে সভাস্থল। দলীয় চেয়ারম্যানের এমন মন্তব্যে নেতাকর্মীদের মুখেও ফোটে উঠে হাসির রেখা। সবাই সিলেটের প্রতি চেয়ারম্যানের এমন বক্তব্যে উল্লাস প্রকাশ করতে দেখা যায়।

আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধুরী বলেছেন, যুবলীগ একটি সুশৃঙ্খল সংগঠন। এটি শৃঙ্খলা শেখার কারখানা। যুবলীগে ধান্দাবাজ-চাঁদাবাজদের স্থান নেই। এখানে মেধাবীদের জায়গা আছে। মেধাবীরাই যুবলীগে মূল্যায়িত হবে।
তিনি বলেন, বাঙালী জাতি হিসেবে আমরা গর্বিত। শেখ হাসিনার মতো একজন রাষ্ট্রনায়ক পেয়েছি। তাঁর সুযোগ্য নেতৃত্বে বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে একটি মডেল রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে।

তিনি শনিবার দুপুর ২ টায় সিলেট ঐতিহাসিক রেজিষ্ট্রারি মাঠে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ সিলেট মহানগর শাখার ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন উদ্বোধনকালে একথা বলেন। সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, পরারাষ্ট্র মন্ত্রী ড. একে মোমেন। প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন, যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মো: হারুনুর রশীদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সদস্য বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) লুৎফুর রহমান, মাহমুদ উস সামাদ কয়েছ এমপি, সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমেদ।

এ সমসয় যুবলীগ চেয়ারম্যান বলেন, ২০০৪ সালে খালেদা জিয়ার শাসনামলে জঙ্গি দেখেছি। আওয়ামী লীগের শাসনামলে তার বিদায় দিয়েছে। জাতীসংঘ জঙ্গীবাদ মোকাবেলায় বাংলাদেশকে মডেল দেশ হিসেবে সীকৃতি দিয়েছে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতে দেশ বিরোধীরা বিভিন্ন গুজব সৃষ্টি করছে। দেশের জনগণ গুজবের বিরুদ্ধে স্বোচ্ছার হচ্ছেন। কানে গুজব ; হাতে আইন। এটা চলতে দেওয়া যায় না। এর মোকাবিলা করতে জনগণ ও প্রশাসন প্রস্তুত রয়েছে।

যুবলীগ নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আমি নেতা ; আমি বক্তা, শ্রেষ্টত্ব প্রমাণের এ লড়াই আজ থেকে শেষ করতে হবে। গোলমাল আর গ্রুপিং রাজনীতি পরিহার করে মানুষের মন জয় করতে হবে। যুবলীগের প্রত্যেক নেতাকর্মীর মধ্যে ছাড় দেওয়ার মানসিকতা থাকতে হবে। যুবলীগে কোনো আত্ম কোন্দল থাকবে না। আজ থেকে শপথ নিতে হবে। নিজেদের মধ্যে আত্ম কোন্দল দূর করে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করব।

সিলেট মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক আলম খান মুক্তির সভাপতিত্বে ও যুগ্ম আহ্বায়ক মুশফিক জায়গীরদার ও সেলিম আহমদ সেলিম’র সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য রাখেন যুবলীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য শহীদ সেরনিয়াবাত, মুজিবুর রহমান চৌধুরী, মো. ফারুক হোসেন, মাহবুবুর রহমান হিরন, ড. আহমদ আল কবির, আবদুস সাত্তার মাসুদ, মো. আতাউর রহমান, অ্যাডভোকেট বেলাল হোসেন, অ্যাডভোকেট মোতাহার হোসেন সাজু, মো. আলী খোকন, যুগ্ম সম্পাদক মহি উদ্দিন আহমেদ মহি, সুব্রত পাল, সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ বদিউল আলম, ফজলুল হক আতিক, ফারুক হাসান তুহিন, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য কাজী আনিসুর রহমান, মিজানুল ইসলাম মিজু, শফিকুল ইসলাম, শ্যামল কুমার রায়, এনআই আহমেদ সৈকত প্রমুখ।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সর্বশেষ খবর

………………………..

shares