কানাইঘাটে বাড়ীর দখল নিতে পল্লী চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করা হচ্ছে

প্রকাশিত: ৫:৪৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৩, ২০১৯

Sharing is caring!

কানাইঘাট ঝিঙ্গাবাড়ী ইউপির চলিতাবাড়ী রাজপুর গ্রামের মৃত হাফিজ মনির উদ্দিনের পুত্র পল্লী চিকিৎসক জামাল উদ্দিনের বসত বাড়ীর একাংশের জায়গা জবর দখল করার লক্ষ্যে একের পর এক তাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে প্রতিবেশী কুদরত উল্লাহ কর্তৃক হয়রানীর অভিযোগ উঠেছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেল ২টায় কানাইঘাট প্রেসক্লাব কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠকালে জামাল উদ্দিন বলেন তার সম্পর্কে চাচাতো ভাই এলাকার প্রত্যন্ত প্রভাবশালী, পরধন লোভী, চলিতাবাড়ী রাজপুর গ্রামের মৃত মুবেশ্বর আলীর পুত্র চিহ্নিত ভ‚মি খেকো কুদরত উল্লাহ ও তার পুত্র জাহিদ আহমদ গংরা তার পৈত্রিক দখলীয় ভিট বাড়ীর একাংশের জায়গা জোর পূর্বক দখল করার নিমিত্তে বিগত ৭/৮ বছর ধরে কয়েকটি মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করে আসছে। এতে করে তিনি কয়েক লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতির শিকার হয়েছেন। ভবিষ্যতে মিথ্যা মামলা দিয়ে কুদরত উল্লাহ আমার পরিবারের সদস্যদের হয়রানী করবে না বলে কয়েক মাস পূর্বে কানাইঘাট থানা পুলিশ ও মুরব্বীয়ানদের কাছে আপোষ নামা দেয়। কিন্তু তারপরও কুদরত উল্লাহ আমার ভিট বাড়ীর একাংশ দখল করার উদ্দেশ্যে আমাকে ও আমার স্ত্রী, ছোট ছোট ছেলে-মেয়েদের মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করে যাচ্ছে। সংবাদ সম্মেলনে জামাল উদ্দিন আরো বলেন ১৭/০৬/২০১৯ইং তারিখে কানাইঘাট গাজী বোরহান উদ্দিন সড়কের ভাটি বীরদল নামক স্থানে লামার ঝিঙ্গাবাড়ী গ্রামের অটোরিক্সা সিএনজি চালক আব্দুল বাসিতের সিএনজি গাড়ী দূঘটনার স্বীকার হয়ে সেই গাড়ীর যাত্রী কুদরত উল্লাহ এর পুত্র জাহিদ আহমদের বাম হাত ভেঙ্গে যায়। যা এলাকার সবাই সহ ঝি্গংাবাড়ী ইউপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আলা উদ্দিন ও গাড়ীর চালকরা জানেন। কিন্তু জাহিদ আহমদ কে আমি সহ আমার পরিবারের সদস্যরা মারধর করে হাত ভেঙ্গে দিয়েছি অভিযোগ এনে জাহিদ বাদী হয়ে গোপনে সিলেটের বিজ্ঞ আদালতে ১১/০৭/২০১৯ইং তারিখে আমি সহ আমার পরিবারে আরো ৪ জনের বিরুদ্ধে সম্পূর্ণ সাজানো মিথ্যা দরখাস্ত মামলা দায়ের করলে সেই মামলায় থানা পুলিশ ১৭ জুলাই গাছবাড়ী বাজারস্থ আমার ফার্মেসী থেকে আমি সহ আমার ছেলে বোরহান উদ্দিন কে গ্রেফতার করেন। সেই মামলায় ৩ দিন জেলে থাকার পর আমি জামিনে মুক্তি লাভ করি। জাহিদ গাড়ী দূর্ঘটনায় আহত হয়েছে মর্মে চেয়ারম্যানের প্রত্যয়ন পত্র রয়েছে। এমতাবস্থায় সাংবাদিকদের লেখনির মাধ্যমে জাহিদ আহমদের দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা তদন্ত পূর্বক প্রত্যাহার এবং সে ও তার পিতা কুদরত উল্লাহ’র বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সিলেটের পুলিশ সুপার, থানার ওসি ও সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন জামাল উদ্দিন। সংবাদ সম্মেলনে কুদরত উল্লাহ কে একজন মামলাবাজ ও হয়রানীকারী উল্লেখ করে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন এলাকার ফখর উদ্দিন, লুৎফুর রহমান, ইব্রাহিম আলী, ওয়ারিছ উদ্দিন, মিছবাহ উদ্দিন, এখলাছ উদ্দিন, সিরাজ উদ্দিন, আলমগীর সহ আরো অনেকে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সর্বশেষ খবর

………………………..

shares