প্রচ্ছদ

কোয়ারিতে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন বন্ধ করা পুলিশের একা পক্ষে সম্ভব নয়, এসপি

২৬ জুন ২০১৯, ১৩:৪৬

স্টাফ রিপোর্টার ::

Sharing is caring!

সিলেট জেলার কোনো থানায় সাধারণ মানুষ যেন হয়রানি কিংবা ভোগান্তির শিকার না হন, এজন্য জেলার সব থানার ওসিদের (ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা) কঠোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন। সিলেটের নবাগত এই পুলিশ সুপার মঙ্গলবার বিকালে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে এ তথ্য জানান। সিলেটে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এই মতবিনিময় অনুষ্ঠিত হয়।

তিনি বলেন, ‘কোনো মানুষ থানায় জিডি করতে গেলে, পুলিশ ভ্যারিফিকেশন সার্টিফিকেট আনতে গেলে এখন থেকে হয়রানিতে পড়তে হবে না। যদি থানার কোনো কর্মকর্তা হয়রানি করেন, তবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে। কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না।’

সিলেটের সকল থানা ‘অসহায় ও ক্ষতিগ্রস্থ মানুষদের আশ্রয়স্থল’ হবে বলেও মন্তব্য করেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন।

তিনি বলেন, ‘পুলিশ প্রবাসীদের স্বার্থ রক্ষায় চেষ্টা করবে। প্রবাসীরা তাদের যেকোনো অভিযোগ, অনুযোগ টেলিফোনে কিংবা সরাসরি আমার কাছে জানাতে পারবেন। আমরা তাদের অভিযোগ গুরুত্ব দিয়েই দেখবো।’

সিলেটের পাথর কোয়ারির বিষয়েও কথা বলেন ফরিদ উদ্দিন। তিনি বলেন, ‘সিলেট থেকে পাথর যায় সারাদেশে। জাফলং, কোম্পানীগঞ্জের ভোলাগঞ্জসহ বিভিন্ন কোয়ারিতে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলন করা হয়। এটি নিয়ন্ত্রণ করা পুলিশের একার পক্ষে সম্ভব নয়। এ বিষয়টির সাথে জেলা প্রশাসন, পরিবেশ অধিদপ্তরও জড়িত। তবে পুলিশ পাথর উত্তোলন যাতে নিয়মতান্ত্রিক পর্যায়ে থাকে, সে বিষয়ে শতভাগ চেষ্টা করবে।’

সিলেটের বিভিন্ন স্থানে ডাকাতি দমন, ডাকাতদের গ্রেফতারের বিষয়ে পুলিশ জোর দিচ্ছে বলে জানান নবাগত এসপি। মতবিনিময় কালে সিলেটের সকল কর্মরত সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ ২৪ খবর

আর্কাইভ

shares