কানাইঘাটে পিতৃহারা তিন জন অবুঝ সন্তানের দায়িত্ব নেবে কে

প্রকাশিত: ১২:১০ পূর্বাহ্ণ, মে ১০, ২০১৯

কানাইঘাটে পিতৃহারা তিন জন অবুঝ সন্তানের দায়িত্ব নেবে কে

কানাইঘাটের পিতৃহারা তিন অবুঝ সন্তানের দায়িত্ব নেবে কে। এ আলোচনা এখন সবার মুখে। অবুজ সন্তানের মা পরকীয়া প্রেমিকের সহযোগীতায় তাদের পিতা সৌদিআরব প্রবাসী ফারুক আহমদ’কে রাতের খাবারের সাথে ঘুমের ঔষধ মিশিয়ে খাইয়ে ঘুমন্ত অবস্থায় প্রেমিকের সহযোগীতায় গলা কেটে লাশ গুম করার জন্য রাতের আধাঁরে গোরকপুর গ্রামের সৌদি প্রবাসী মাসুক আহমদের ব্যবহৃত বাথরুমের টেংকীর ঢাকনা খুলে ভিতরে ফেলে রাখেন। অবুঝ শিশুদের পিতা ফারুক আহমদ গত ৫ মে সকাল থেকে নিঁেখাজ হওয়ার পর পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা ফারুক আহমদের স্ত্রী অবুঝ শিশুদের মা হোসনা বেগমকে জিজ্ঞাসাবাদ করিলে তিনি জানান, মেয়েদের পিতা খুব ভোরে কাজের উদ্দেশ্যে কোথায় বের হয়েছেন গেছেন। কোথায় কাজে যাচ্ছেন তিনি তাকে অবগত করেননি। পরে নিখোঁজের আপন চাচা সমছুল হক প্রবাসী ফারুক আহমদ নিখোঁজের ব্যাপারে গত মঙ্গলবার কানাইঘাট থানায় সাধারণ ডায়রী দায়ের করেন। ডায়রীর পর থেকে কানাইঘাট থানা পুলিশ ফারুক আহমদে’র নিখোঁজের বিষয়ে ব্যাপক তদন্ত শুরু করে। পরে পুলিশ ফারুক আহমদে’র বাড়ীতে তদন্ত করতে গেলে তার বসত ঘরের কোন কোন জায়গায় রক্তের দাগ দেখতে পেয়ে তারই স্ত্রী হোসনা বেগমকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে কোন সঠিক উত্তর দিতে পারেনি। তাই হোসনা বেগমকে আটক করে কানাইঘাট থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। পরে ফারুক আহমদের স্ত্রী হোসনা বেগমকে জিজ্ঞাসাবাদের পর তার মুখের বর্ণনা শুনা পর মঙ্গলবার রাত ৪টায় ফারুক আহমদের লাশ সৌদি প্রবাসী মাসুক আহমদের লেট্রিনের টেংকীর ভিতরে খুঁেজ পায় কানাইঘাট থানা পুলিশ। পরে স্থানীয় এলাকাবাসীর সহযোগীতায় বুধবার সকাল ৭টায় ফারুক আহমদে’র গলা কাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
জানা গেছে, কানাইঘাট উপজেলার লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপির বাউরভাগ ৩য় খন্ড (নুরপুর) গ্রামের মৃত মাহমুদ আলীর পুত্র সৌদি প্রবাসী ফারুক আহমদ (৩৫) এর সঙ্গে মৃত মশাহিদ আলীর মেয়ে হোসনা বেগমের সহিত বিবাহ হয়। বিবাহের পর ফারুক আহমদ পরিবারের অভাব অনটন দুর করতে সৌদি আরবে চলে যান। সেই সুযোগে একই গ্রামের পার্শ্ববর্তী বাড়ীর নছির আলী আক্কার পুত্র মোস্তাফা আহমদের সঙ্গে পরকিয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে ফারুক আহমদের স্ত্রী হোসনা বেগমের। এনিয়ে স্থানীয় ভাবে বেশ কয়েকবার শালিস বৈঠকের মাধ্যমে তাদের পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন না হওয়ায় গত দু’মাস পূর্বে ফারুক আহমদ সৌদি আরব থেকে বাড়ীতে চলে আসেন। এতে মোস্তফা আহমদের সঙ্গে হোসনা বেগমের পরকীয়া সম্পর্ক নিয়ে ফারুক আহমদের মধ্যে মনোমালিন্য সৃষ্টি হয়। এর মধ্যে গত শনিবার হোসনা বেগম তার পরকীয়া প্রেমিক মোস্তাফা আহমদের সঙ্গে পরামর্শ করে অপর দ’ুসহযোগী নিয়ে ফারুক আহমদকে ঘুমন্ত অবস্থায় গলা কেটে হত্যা করে।

Sharing is caring!

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সর্বশেষ খবর

………………………..