প্রতিমন্ত্রী হিসেবে পূন্যভূমি সিলেটে ইমরান আহমদের পদার্পণ

প্রকাশিত: ৩:১৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৪, ২০১৯

প্রতিমন্ত্রী হিসেবে পূন্যভূমি সিলেটে ইমরান আহমদের পদার্পণ

স্টাফ রিপোর্টার ::  সিলেট-৪ আসন (গোয়াইনঘাট, কোম্পানিগঞ্জ ও জৈন্তাপুর) উপজেলা থেকে ৬ষ্ট বারের মত নির্বাচিত হয়ে সংসদ সদস্য হিসেবে বরাবরের ন্যায় শপথ গ্রহনের জন্য সিলেট থেকে ঢাকায় যান ইমরান আহমদ। কিন্তু এবার ঢাকা থেকে তিনি শুধু এমপি হয়ে নয় প্রতিমন্ত্রী হয়ে ফিরেন সিলেটে। এ আসন থেকে নির্বাচিত হয়ে কেহ পূর্বে কখনও মর্যাদাপূর্ন উপমন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও মন্ত্রী হতে পারেননি। ১ম বারের মতো প্রতিমন্ত্রী পেয়ে এ আসনের মানুষের মধ্যে দলমতের উর্ধে অন্যরকম আনন্দন উল্লাস বিরাজমান।

সোমবার (১৪ জানুয়ারি) দুপুরে সিলেটে হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজার জিয়ারত শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। মধ্যপ্রাচ্য থেকে নারী শ্রমিকদের নির্যাতন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি মাত্র ২দিন হয়েছে দায়িত্ব নিয়েছি। ইতোমধ্যে এই বিষয় নিয়ে কথা হয়েছে। এর জন্য মধ্যপ্রাচ্যে যাওয়ারও পরিকল্পনা আছে। আশাকরি একটা সমাধান হবে।’ প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর সোমবারই প্রথম সিলেট আসেন সিলেট-৪ আসনের সাংসদ ইমরান আহমদ। মাজার জিয়ারত শেষে তিনি নিজ নির্বাচনী এলাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেন।

গত ৩০ ডিসেম্বর বিপুল ভোটের ব্যাবধানে বিএনপি মনোনীত, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোট সমর্থিত প্রার্থী দিলদার হোসেন সেলিমককে পরাজিত করে ৬ষ্ট বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি।

ইমরান আহমদ ১৯৪৮ সালে ২২ ফেব্রয়ারী ভারতের আম্বালায় জন্মগ্রহ করেন। তার পিতা মরহুম ক্যাপ্টেন রশিদ আহমদ ও মাতা মরহুমা কমরুন নেছা। তিনি ১৯৬৪ সালে ফৌর্জদারহাট ক্যাডেট কলেজ থেকে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট ও একই স্কুল থেকে ১৯৬৬ সালে উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট পাশ করেন। ১৯৬৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ভূগোল বিষয়ে স্নাতক সম্মান ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ১৯৮৬ সন থেকে সরাসরি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের রাজনীতি ও জনসেবার সংঙ্গে জড়িত হন। ইমরান আহমদ ১৯৮৬,১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০৮, ২০১৪ ও ২০১৮ সালে এ আসন থেকে ৬ষ্ট বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ৫ম জাতীয় সংসদে বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত স্হায়ী কমিটির সদস্যের দায়িত্ব পালন করেন। ৯ম জাতীয় সংসদে লাইব্রেরী কমিটি এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত স্হায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১০ম জাতীয় সংসদে তিনি ডাক,টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্হায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি রাংপানি ক্যাপ্টেন রশিদ হাইস্কুল এন্ড কলেজ, ইমরান আহমদ মহিলা ডিগ্রি কলেজ, গোয়াইনঘাট ইমরান আহমদ বালিকা বিদ্যালয়, ইমরান আহমদ কারিগরি কলেজ, কোম্পানিগঞ্জের প্রতিষ্টতা। গোয়াইনঘাট সরকারি কলেজ, জৈন্তিয়া ডিগ্রি কলেজ, সারীঘাট উচ্চ বিদ্যালয়, সালুটিকর ডিগ্রি কলেজ, আলীরগাঁও কলেজ, হাজী সোহরাব আলী স্কুল এন্ড কলেজ, রুস্তমপুর কলেজ, তোয়াকুল কলেজ, হযরত শাহজালাল (রহ,) ডিগ্রি  কলেজ, গোয়াইনঘাট প্রেসক্লাবসহ শতাধিক প্রতিষ্টানের দাতা সদস্য। এ আসনের প্রাথমিক,মাধ্যমিক, মাদরাসা, কলেজসহ সিংহ ভাগ শিক্ষা প্রতিষ্টানে তারই প্রচেষ্টায় আলো জ্বলছে। এ সংসদীয় আসনের যোগাযোগ, বিদ্যুৎ ও চিকিৎসায় রয়েছে তার অবদান অনস্বীকার্য।  তিনি বাংলা ভাষার পাশাপাশি ইংরেজি ও উর্দু ভাষায় পারদর্শী।

তিনি প্রধানমন্ত্রীর সফর সঙ্গী হিসেবে দক্ষিণ কোরিয়া এবং কাতার সফর করেন। ভারত,পাকিস্তান, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, যুক্তরাষ্ট্র, ফিলিপাইন, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, চীন, অষ্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, সিংঙ্গাপুর, ত্রিনীদাদ, যুক্তরাজ্য, আজারবাইজান, উগান্ডা, দক্ষিণ আফ্রিকা, জাম্বিয়া, ক্যামেরুন, সুইজারল্যান্ড, কলম্বিয়া এবং হল্যান্ড সরকারি ভাবে সফর করেন। বিবাহিত জীবনে তিনি এক পূত্র ও এক কন্যা সন্তানের জনক। তার সহধর্মীনি ড. নাসরিন আহমদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক। বর্তমানে ড. নাসরিন আহমদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে উপ-উপাচার্য (একাডেমিক) হিসেবে নিয়োজিত।প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ বলেছেন, ‘প্রবাসীদের যত সমস্যা আছে। সমাধান করার পরিকল্পনা করছি।’

Sharing is caring!

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সর্বশেষ খবর

………………………..