গোলাপগঞ্জে অস্ত্র ও গুলিসহ ডাকাত আটক

প্রকাশিত: 5:03 PM, January 19, 2018

গোলাপগঞ্জ  প্রতিনিধি : সিলেটের গোলাপগঞ্জে পুকুর খনন করতে গিয়ে একটি তাজা গ্রেনেডের সন্ধান পাওয়া গেছে। উপজেলার লক্ষ্মীপাশা থেকে এই গ্রেনেডটি পুলিশ উদ্ধারের পর থানায় নিয়ে আসে বৃহস্পতিবার রাতে। একটি তাজা গ্রেনেড উদ্ধার করেছে পুলিশ। উদ্বারকৃত গ্রেনেডটি সেনাবাহিনীর মাধ্যমে ধ্বংস করা হবে।

পুলিশ জানায়, উপজেলার লক্ষ্মীপাশা গ্রামের জাকির হোসেন নামে এক ব্যক্তি পুকুর খোঁড়ার সময় হঠাৎ গ্রেনেডটি দেখতে পান। এসময় সে থানার পুলিশকে বিষয়টি অবগত করলে সাথে সাথে গোলাপগঞ্জ মডেল থানার এ,এস,আই জাকির হোসেন একদল পুলিশ নিয়ে পরিত্যাক্ত অবস্থায় গ্রেনেডটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। উদ্বারকৃত গ্রেনেডের গায়ে পি ও এফ লেখা রয়েছে। পরে রাতে সিলেট র‌্যাব-৯ এর এ্যাডিশনাল এসপি মনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে বিশেষ একটি দল গ্রেনেডটি পর্যবেক্ষণ করতে থানায় আসেন। এ ব্যপারে র‌্যাবের পরিদর্শক মনিরুজ্জামান বলেন, গ্রেনেডটি এখনো তাজা রয়েছে। গ্রেনেডের গায়ে পি ও এফ লেখা রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, গ্রেনেডটি পাকিস্তান আমলের তেরী। উদ্বারকৃত গ্রেনেডটি সেনাবাহিনীর মাধ্যমে ধ্বংস করা হবে বলেও গণমাধ্যমকে জানান তিনি। এদিকে গোলাপগঞ্জের বাঘার বটরতল বাজার থেকে শামীম আহমদ (৩২) নামে এক ডাকাতকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে গোপন সংবাদেও ভিত্তিতে তাকে অস্ত্র ও গুলিসহ আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়। আটককৃত ডাকাত জৈন্তাপুর থানার বিড়াখাই গ্রামের মৃত ইয়াছিন আলীর পুত্র বলে জানায় পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গোলাপগঞ্জ মডেল থানার অপারেশন ইন্সপেক্টর দেলোয়ার হোসেন একদল ফোর্স নিয়ে বাঘার বটতলা বাজারে অভিযান চালান। এসময় ডাকাতির প্রস্ততি কালে বটরতল বাজার সংলগ্ন দক্ষিণ বাঘা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামন থেকে শামীম আহমদকে অস্ত্র ও একটি কার্তুজসহ আটক করতে সক্ষম হয়। এসময় তার সাথে থাকা সহযোগী ডাকাতরা পালিয়ে যায়। এ ব্যাপাওে থানার ওসি একেএম ফজলুল হক শিবলী আটকের সততা নিশ্চিত করে বলেন, শামীমকে শুক্রবার সকালে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

বিজ্ঞাপন

আর্কাইভ

সর্বশেষ খবর

………………………..